|
এই সংবাদটি পড়েছেন 135 জন

সিলেটে জাতীয় পতাকার অবমাননা, উড়ছে ব্রিটিশ পতাকা

ডেইলি বিডি নিউজঃ সিলেটের সুবিদবাজারে একটি ভবনে বাতাসে দোল খাচ্ছে ব্রিটিশ পতাকা। দেখে মনে হতে পারে হয়তো বাংলাদেশে অবস্থিত কূটনৈতিক মিশনসমূহের চ্যান্সারী ভবন কিংবা কোন কন্স্যুলার অফিস। বাস্তবে ঐ ভবনটি হলো রাইজ স্কুল (রয়্যাল ইন্সটিটিউট অব স্মার্ট এডুকেশন) যেখানে ব্রিটিশ ক্যামব্রিজ কারিকুলামে পাঠদান করানো হয় শিক্ষার্থীদের। একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এভাবে নিয়মনীতি না মেনে ভিন দেশের পতাকা উত্তোলন এবং সেই সাথে ‘পরোক্ষভাবে’ বাংলাদেশের পতাকাকে অবমাননা নিয়ে ক্ষোভ জমছে সিলেটবাসীর মনে।

দেশে ভিন দেশের পতাকা উড়ানোর জন্য গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের পতাকা বিধিমালা, ১৯৭২ এর ৯নং অনুচ্ছেদে বেশ কয়েকটি নিয়মনীতি আছে।  সেখানে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এরকম প্রকাশ্যে  অন্য দেশের পতাকা উত্তোলনের নিয়ম নেই। তাছাড়া বিধিতে উল্লেখ আছে কুটনৈতিক মিশন সমুহের প্রধানগণ ছাড়াও কোন দেশের ভ্রমনরত রাষ্ট্রপ্রধান, প্রধানমন্ত্রী ও বিদেশী সরকারের মন্ত্রীবর্গ তাদের দেশের জাতীয় পতাকা অফিসিয়াল বাসভবন কিংবা মোটরগাড়ীতে উত্তোলন করতে পারবেন। ৯নং অনুচ্ছেদের আরেকটি বিধিতে বলা আছে, জাতীয় দিবসসমূহে  বাংলাদেশে অবস্থিত কূটনৈতিক মিশনসমূহের প্রধানগণ বাসভবন বা চ্যান্সারী ব্যতীত অন্যকোন স্থানে তাদের পতাকা উত্তোলন করতে হলে  অবশ্যই বাংলাদেশের ‘পতাকা’ও সম্মানজনক স্থানে পাশাপাশি উত্তোলন করতে হবে।

কিন্তু বাস্তবে সুবিদবাজারস্থ রাইজ স্কুলে গিয়ে দেখা গেছে কোন ধরণের অনুমোদন ব্যতীত ব্রিটিশ পতাকা উড়াচ্ছে স্কুলটির কর্তৃপক্ষ। নিয়মানুযায়ী অন্যদেশের পতাকা অনুমোদন সাপেক্ষে উড়াতে হলেও পাশাপাশি বাংলাদেশের পতাকা সম্মানজনক স্থানে উত্তোলন করতে হবে। প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম শেষে আবার পতাকা নামানোর ক্ষেত্রেও আগে অন্যদেশের পতাকা নামিয়ে সবশেষে বাংলাদেশের পতাকা নামানোর বিধি রয়েছে। পতাকা উত্তোলন এবং নামানোর নির্দিষ্ট বিধিমালা থাকলেও দিন গড়িয়ে রাত, রাত গড়িয়ে আবার দিন, দিনের পর দিন চলে গেলেও এই ব্রিটিশ পতাকা এক মুহুর্তের জন্য নামানোর প্রয়োজন মনে করেন না প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষ।

ব্রিটিশ পতাকা ২৪ঘন্টা ভবনটির সামনে উত্তোলন অবস্থায় থাকে। প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম শেষেও ব্রিটিশ পতাকা নামানোর প্রয়োজন মনে করেন না স্কুলটির কর্তৃপক্ষ। তাছাড়া প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রমের সময় বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করলেও নামানোর সময় কোন বিধি নিষেধ না মেনেই ব্রিটিশ পতাকা উত্তোলন রেখেই নামানো হয় বাংলাদেশের পতাকা।

এদিকে স্কুলটির শিক্ষার্থীদের অনেক অভিবাবকসহ এলাকাবাসীও বিষয়টির প্রতি ক্ষোভ জানিয়েছে। ব্রিটিশ পতাকা উড়িয়ে বাংলাদেশের পতাকাকে অবমাননা করায় শিক্ষার্থীরা দেশপ্রেমে বলীয়ান না হয়ে ভিনদেশের প্রতি আগ্রহী হওয়ার সম্ভাবনা তৈরী হচ্ছে।

বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে রাইজ স্কুলের অফিসের নাম্বারে কল করা হলেও বন্ধ থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে স্কুলটীর পাবলিক রিলেশন অফিসার ইফতি সিদ্দিকী সাংবাদিকদের জানা্ন, ব্রিটিশ পতাকা উত্তোলনে বিধি নিষেধ আছে এটা তাদের জানা ছিলো না। কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ-আলোচনা মাধ্যমে পতাকাটি নামিয়ে নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

তিনি আরো জানান, তারা প্রতিদিন সকালে বাংলাদেশের পতাকাও উত্তোলন করেন। আবার বিকালে নিয়ম মেনে নামিয়ে নেন। ব্রিটিশ পতাকা ২৪ঘন্টাই উত্তোলিত অবস্থায় থাকে কেন? এতে কি বাংলাদেশের পতাকার অবমাননা হচ্ছেনা? সাংবাদিকদের করা এমন প্রশ্ন এড়িয়ে তিনি জানান, খুব দ্রুতই পতাকাটি নামানো হবে।