|
এই সংবাদটি পড়েছেন 103 জন

গোয়াইনঘাটে সরকারি খাস জমিতে অবৈধ দোকান ঘর নির্মান, মসজিদের প্রবেশে বাধা

নিজস্ব প্রতিবেদক :: সীমান্ত জনপথ সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার ডৌবাড়ী ইউনিয়নের হাকুর বাজারে সরকারি জায়গা দখল করে নমনির্মিত মসজিদের মেইন ফটকের সামনা ও প্রবেশ পথে দোকান ঘর নির্মাণে মরিয়া হয়ে উঠেছে একটি ভুমিখো কুচক্রী মহল। এছাড়াও মসজিদে প্রবেশ পথের দুই পার্শে বেশ কিছু অবৈধ দখলদার সরকারি জমি দখল করে দোকান ঘর নির্মান করে বসে আছেন। এসব দোকানের জন্য স্বাভাবিক ভাবে মুসল্লিরা মসজিদে প্রবেশ করতে পারছেনা। সমাজের আড়ালে থাকা কিছু অসাধু ব্যক্তিদের পরামর্শ এবং সহযোগীতার কারনে এমন দুঃসাহস করছেন বলে মন্তব্য করেন সাধান মানুষ।

এ বিষয়ে গত মঙ্গলবার হাকুর বাজার মসজিদ পরিচালনা কমিটি বাদী হয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে, গোয়াইনঘাট উপজেলার ডৌবাড়ী ইউনিয়নের হাকুর বাজার মসজিদের সামনে সরকারি খাস খতিয়ান ভুক্ত জমিতে যাত্রাবা গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে আব্দুল মুতলিব,বলেশ্বর গ্রামের মৃত আব্দুল গফুর এর ছেলে ফরিদ উদ্দিন,মুহাম্মদ আলীর ছেলে মুজম্মিল আলী,লামাদুমকা গ্রামের মৃত আব্দুল ওহাব এর ছেলে মুজিবুর রহমান, মসজিদের সামনে অবৈধ দোকান ঘর নির্মান করে মসজিদের সুন্দর্য নষ্ট করার পায়তারা করছে। যার ফলে মসজিদে আসা যাওয়া ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের নানা ধরনের সমস্যার সৃষ্টি হবে বলে অভিযোগ করেন এলাকাবাসী। উক্ত স্থানে অবৈধ দোকান ঘর সরিয়ে নিতে বার বার তাদের সাথে যোগাযোগ করলে এবিষয়ে কোন গুরুত্ব দেননি এমন অভিযোগে উল্লেখ করেন মসজিদ পরিচালনা কমিটির সদস্যরা।

গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত কূমার পাল বলেন কেউ যদি সরকারি জমিতে অবৈধভাবে দোকান ঘর অথবা স্থাপনা নির্মাণ করে তাহলে তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিশ্বজিত কুমার পাল র তাগিদে, উপজেলা (ভূমি) তহসিলদার নিত্তানন্দ দাস জায়গা পরিদর্শন করেন এবং বলেন, সরকারি খাস জমিতে অবৈধ ভাবে ঘর নির্মানের খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক ভাবে আমরা হাকুর বাজার এসে তা বন্ধ করেছি এবং তাদেরকে ২দিনের মধ্যে দোকান ঘর স্পাপনা সরিয়ে নেয়ার জন্য বলেছি, এ ছাড়াও হাকুর বাজার বিভিন্ন স্থানে সরকারি জমি দখল করে যারা অবৈধ দোকান ঘর নির্মান করেছে তাদেরকে নোটিশের মাধ্যমে স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার জন্য বলা হবে। এর পরও যদি স্থাপনাগুলি দখলদাররা নিজে থেকে সরিয়ে না নেয় সে ক্ষেত্রে আইনি প্রক্রিয়ায় উচ্ছেদ করা হবে।