|
এই সংবাদটি পড়েছেন 53 জন

গরমে বেড়েছে ডায়রিয়ার প্রকোপ

হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ গত কয়েকদিনের টানা গরমে অস্থির হয়ে পড়েছে হবিগঞ্জের জনজীবন। আর এ তীব্র গরমের কারণে হাসপাতালে বাড়ছে ডায়রিয়া ও নিউমুনিয়াসহ বিভিন্ন রোগীর সংখ্যা। ডায়রিয়ায় আক্রান্তদের মধ্যে বেশির ভাগই রয়েছে শিশু। এছাড়াও রয়েছেন যুবক এবং বৃদ্ধরাও।

বাড়তি রোগীর চাপ সমালাতে হচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। তাই তীব্র এ গরমে শিশুদের রৌদ্র থেকে দুরে রাখা ও তাদেরকে সবসময় তরল খাবার খাওয়ানোর পরামর্শ দিচ্ছেন তারা।

জানা যায়, গত কয়েকদিন ধরে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে রোগীদের ভীড় স্বাভাবিকের তুলনায় বেড়ে গেছে। আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে বেশির ভাগই শিশু। অস্বাভাবিক গরমের কারণে রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। গরম অব্যাহত থাকলে রোগীর সংখ্যা আরও বাড়বে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। প্রতিবছরই গরমের সময় ডায়রিয়ার প্রকোপ বেড়ে যায় বলেও জানান তারা।

চিকিৎসকরা জানান, তীব্র গরমের কারণে পানির চাহিদা বাড়ে দ্বিগুণ। তাই এসময় বিশুদ্ধ পানির সংকটও দেখা দেয়। বেশিরভাগ সাধারণ কর্মক্ষম মানুষেরা দূষিত পানি পান করে। আর এতে করে তারা ডায়ারিয়াসহ বিভিন্ন রোগে বেশি আক্রান্ত হয়। এছাড়াও পঁচা বাসি খাবার, রাস্তার পাশে দূষিত পানির তৈরি শরবত পান করা থেকে বিরত থাকতে হবে বলেও জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল কর্তপক্ষ জানায়, গত দুই থেকে তিন দিনে হাসপাতালে শুধু ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছে প্রায় ৩০ জন শিশু। এছাড়াও নিউমুনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছে আরো ২০ জন শিশু। শুধু শিশুরাই নয় গরমের কারণে ডায়রিয়াসহ আরো বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন আরো অর্ধশতাধিক রোগী।

হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের চিকিৎসক ডাঃ মিঠুন রায় জানান, হঠাৎ করে ডায়রিয়া বেড়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ হল আবহাওয়ার পরিবর্তন। তীব্র এ গরমে দূষিত পানি পানের কারণে ডায়রিয়া বাড়ছে। এছাড়াও ডায়রিয়া থেকে রক্ষায় সকলকে পানি ফুটিয়ে অথবা বিশুদ্ধ পানি পান করতে হবে। অন্যদিকে রাস্তার পাশে বিক্রি করা খোলা খাবার ও শরবত পান না করতেও বলেন তিনি।

ডায়রিয়ায় আক্রান্ত এক শিশুর মা হাফিজুন্নেছা বেগম বলেন, হঠাৎ করেই শুক্রবার রাত থেকে তার সন্তানের ডায়রিয়া শুরু হয়। প্রাথমিক ভাবে তিনি গ্রাম্য চিকিৎসক দেখালেও ডায়রিয়া কমেনি। তাই তিনি তার সন্তানকে নিয়ে এসে হাসপাতালে চিকিৎসা করাচ্ছেন।