|
এই সংবাদটি পড়েছেন 106 জন

দাগের ভেতর কোনো সাংবাদিক এলাও না: ইউএনও রেইনা

ডেইলি বিডি নিউজঃপা দিয়ে দাগ টেনে সেই ‘দাগের ভেতর কোন সাংবাদিক এলাও না’ বলে বেফাঁস মন্তব্য করেছেন আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তাহমিনা আক্তার রেইনা।

বৃহস্পতিবার ভারতীয় হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলী দাস বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের নির্মাণাধীন আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ পরিদর্শনে আসলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার মনিয়ন্দ ইউনিয়নের শিবনগরে সাংবাদিকদের উদ্দেশে এ বিরূপ মন্তব্য করেন নবাগত ইউএনও।

তবে এর আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক (ডিসি) হায়াত-উদ-দৌলা খাঁন উপস্থিত সাংবাদিকদের অনুরোধে ভারতীয় হাইকমিশনের বক্তব্য নেয়ার অনুমতি দেন।

এদিকে আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তাহমিনা আক্তার রেইনার এমন বেফাঁস মন্তব্যের প্রতিবাদে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সাংবাদিকদের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

বিষয়টি নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ইলেট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের অন্যতম সংগঠন ‘ইলেকট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন (ইমজা) এবং আখাউড়া উপজেলা প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।

এ ঘটনায় অনেক সিনিয়র সাংবাদিক বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

সূত্র জানায়, বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের নির্মাণাধীন আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ পরিদর্শনে আসেন ভারতীয় হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলি দাস। এ সময় সংবাদ সংগ্রহের জন্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও আখাউড়া থেকে বেশ কয়েকজন সিনিয়র সাংবাদিক আখাউড়া উপজেলার মনিয়ন্দ ইউনিয়নের শিবনগরে যান।

এ সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খাঁনের অনুমতি নিয়ে উপস্থিত সাংবাদিকরা ভারতীয় হাইকমিশনের বক্তব্য নেয়ার জন্য যেতে চাইলে মাটিতে পা দিয়ে দাগ টেনে ‘ওই দাগের ভেতর কোনো সাংবাদিক এলাও না’ এমন মন্তব্য করেন ইউএনও

তাহমিনা আক্তার রেইনা।

এ সময় ইউএনও পুলিশকে নির্দেশ দেন যেন কোনো সাংবাদিক ওই দাগের ভেতর প্রবেশ করতে না পারে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ‘ইলেকট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের (ইমজা) সভাপতি এবং এটিএন নিউজ ও এটিএন বাংলার পূর্বাঞ্চলীয় ব্যুরো চিফ পীযুষ কান্তি আচার্য ফেসবুকে মন্তব্য করে বলেন, ‘দু:খিত নতুন ইউএনওকে অভিনন্দন জানাতে পারলাম না। তিনি আজ (শনিবার) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কয়েকজন সাংবাদিকের সঙ্গে চরম অসদাচরণ করেছেন। যা অনাকাঙ্ক্ষিত। তার শুভবুদ্ধির উদয় হোক। তিনি হয়তো জানেন না বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ ডিগ্রি নিয়েই সাংবাদিকতা করি। অহংকার পতনের মূল। তাই ইউএনও মহোদয়ের শুভবুদ্ধির কামনা করছি।