|
এই সংবাদটি পড়েছেন 85 জন

মেয়র আরিফুল হকের মৌখিক নির্দেশ : টার্মিনালে নির্মাণ হচ্ছে কালামের অবৈধ ভবন

বিশেষ প্রতিনিধি : সিলেট সিটি কর্পোরেশন এলাকার দক্ষিণ সুরমাস্থ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের জায়গায় মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর মৌখিক নির্দেশে নির্মিত হচ্ছে বিএনপি নেতা কামাল চেয়ারম্যানের অবৈধ ৫তলা ভবন। এমন গুঞ্জন দক্ষিণ সুরমার সর্বত্র। বাসটার্মিনালের প্রায় ৪ শতক ভুমিতে অবৈধ ভবন নির্মাণে নেই সিসিকের কোন অনুমোদন কিংবা মন্ত্রনালয়ের নির্দেশিকা। শুধু মাত্র মেয়র আরিফুল হকের সাথে গভির সম্পর্ক থাকার কারণে আধুনিক বাসটার্মিনালের যায়গায় ভবনটি নির্মাণ নিয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন সিসিকের ২জন কাউন্সিলার। কিন্তু তবুও থেমে থাকেনি বিএনপি নেতা কালামের অবৈধ নির্মাণ কাজ। সিসিকের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, অনুমোদনহীন এই ভবন নির্মাণ বন্ধের দাবিতে সিসিকের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন ২৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র-১ মোহাম্মদ তৌফিক বকস লিপন ও ২৫, ২৬ ও ২৭নং ওয়ার্ডের মহিলা কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র-২ এডভোকেট রোকসনা বেগম শাহনাজ। গত ৩০ এপ্রিল লিখিত অভিযোগ দিলেও বন্ধ হয়নি কালামের ভবন নির্মাণ কাজ। জানা যায়, সিলেট কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের জায়গায় অনুমোদনহীন অবৈধ পাঁচতলা ভবন নির্মাণ শুরু করেন সিলেট জেলার দক্ষিণ সুরমা উপজেলার মোগলাবাজার থানাধীন কুচাই ইউনিয়নের সুলতানপুর গ্রামের মরহুম সুরুজ মিয়া ছেলে প্রভাবশালী বিএনপি নেতা আবুল কালাম চেয়ারম্যান। উক্ত ভবন নির্মাণে বৈধ কাগজপত্র নেই তার। বিগত দিনের ৩ বছরের একটি লিজকে পূঁজি করে ভবনটি নির্মাণ করা হচ্ছে বলে উঠেছে অভিযোগ। যে লীজের মেয়াদ শেষ হয়েছে অনেক আগেই। যা আর কখনো নবায়ণ করেননি কালাম চেয়ারম্যান। বাস টার্মিনালের ৪ শতক ভুমিতে গ্রাস করে সিসিকের অনুমতি ছাড়াই ভবন নির্মাণ নিয়ে দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্ন। সিসিক এলাকার ছোটখাটো অবৈধ স্থাপনা গুড়িয়ে দিলেও কালাম চেয়ারম্যানের এই অবৈধ নির্মাণ ব্যাপারে তিনি রয়েছেন নমনীয়। আর সিটির চীফ ইঞ্জিনিয়ার নুর আজিজুর রহমানের ভূমিকা নিয়ে উঠেছে নানা রকম অভিযোগ। এছাড়া অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় সাংবাদিকদের মুখ বন্ধ রাখতে নাকি সিটির এক সাংবাদিক ঠিকাদার লিজ নিয়ে নিছেন সব কিছুর। স্থানীয় তৌফিক বকস লিপন ও রোকসনা বেগম শাহনাজ অভিযোগ বলেন, চেয়ারম্যান কালাম টার্মিনালের যে ৪ শতক ভূমিতে ভবন নির্মাণ করছেন এ ব্যাপারে মন্ত্রণালয়ে থেকে কোন অনুমতি গ্রহণ করেননি। এমনকি সিলেট সিটি কর্পোরেশনের অনুমতি ছাড়াই ভবনের কাজ করছেন তিনি। অত্যাধুনিক বাস টার্মিনালের বর্তমান ডিজাইনের সাথে উক্ত স্থানে ভবন নির্মাণ সাংঘর্ষিক।