|
এই সংবাদটি পড়েছেন 53 জন

হাওরবাসীর স্বপ্নের টেক্সটাইল ইন্সটিটিউটের কাজ শুরু

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনামন্ত্রী আলহাজ্জ্ব এম এ মান্নানের একান্ত প্রচেষ্টার ফসল হিসেবে হাওরবাসীর বহুল প্রত্যাশিত স্বপ্নের টেক্সটাইল ইন্সটিটিউটের কাজ সম্প্রতি শুরু হয়েছে। টেক্সটাইলটি দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার শান্তিগঞ্জ এলাকায় সাত একর জমির উপর নির্মাণ হচ্ছে। এতে ব্যয়ের পরিমান ১০৩ কোটি ধরা হলেও প্রকৃতপক্ষে ব্যয় হবে প্রায় ২০০ কোটি টাকা। গত বছরের ৭ অক্টোবর এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন সাবেক পাট ও বস্ত্র প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম ও পরিকল্পনামন্ত্রী আলহাজ্জ্ব এম এ মান্নান এমপি। হাওরবাসীর বহুল প্রত্যাশিত এই টেক্সটাইল ইন্সটিটিউটের কাজ শেষ হয়ে গেলেই এর মাধ্যমে হাওর এলাকায় কর্মমূখী শিক্ষার নতুন দিগন্ততের দ্বার উন্মোচিত হবে। হাওর এলাকার শিক্ষার্থী ঘরের পাশেই উচ্চতর ডিগ্রি নিতে পারবে। এখানে শিক্ষা নিয়ে দেশের কাজে নিজেদের বিলিয়ে দিতে পারবে।

এছাড়াও এই প্রতিষ্ঠানে ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজও রূপান্তর করার পরিকল্পনা রয়েছে। এই টেক্সটাইল ইন্সটিটিউটের এলাকায় আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্পন্ন কয়েকটি প্রশাসনিক ভবন, শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের আবাসিক ভবন, অভ্যন্তরীণ রাস্তা, শহীদ মিনার ও খেলার মাঠ নির্মাণ করা হবে। সম্প্রতি টেক্সটাইল ইন্সটিটিউটের কাজ শুরু হওয়ার আনন্দে ভাসছে হাওর জনপদ সুনামগঞ্জ। আওয়ামীলীগ সরকার ও পরিকল্পনামন্ত্রীর প্রশংসায় প্রশ্নমুখ হাওরবাসী।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার সুলতানপুর এলাকার কপিল উদ্দিন নামের একজন জানান, সত্যিই নিজেদের ভাগ্যবান মনে হচ্ছে। আমরা স্বপ্নেও যা কল্পনা করতে পারিনি আজ তা আমাদের অহংকার পরিকল্পনামন্ত্রীর প্রচেষ্টায় আমাদের চোখের সামনেই বাস্থবায়ন হচ্ছে। টেক্সটাইল ইন্সটিটিউটের কাজ শেষ হলেই আধুনিক শিক্ষায় আলোকিত হবে আমাদের এই জনপদ।

এক শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম জানান, টেক্সটাইল ইন্সটিটিউট নির্মান আমাদের জন্য সৌভাগ্যের বিষয়। শুধু টেক্সটাইলই নয় আমাদের সুনামগঞ্জে এম এ মান্নান মহোদয়ের প্রচেষ্টায় যে কত উন্নয়ন হয়েছে তা বলে শেষ করা যাবে না।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজী তহুর আলী জানান, পরিকল্পনামন্ত্রীর একান্ত প্রচেষ্টার ফসল হিসেবেই কাজ শুরু হয়েছে টেক্সটাইল ইন্সটিটিউটের। জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাদের হাওরবাসীর উন্নয়নের জন্যই এম এ মান্নান সাহেবকে গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী করেছেন। যা আমাদের সুনামগঞ্জের জন্য পরম পাওয়া।

সচেতন মহলের মতে, উন্নয়নের খতিয়ান হিসেবেই দক্ষিণ সুনামগঞ্জে স্থাপিত হচ্ছে টেক্সটাইল ইন্সটিটিউট। যা আমাদের সুনামগঞ্জের শিক্ষাক্ষেত্রে নতুন মাত্রা যোগ করবে। সমাজ হবে কর্মমূখী শিক্ষায় আলোকিত। এ ব্যাপারে পরিকল্পনামন্ত্রী আলহাজ্জ্ব এম এ মান্নান এমপি বলেন, শুধু টেক্সটাইল ইন্সটিটিউটেই সীমাবদ্ধ নয়। এখানে স্থাপিত হবে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সুনামগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, টেক্সটাইল ট্রেনিং ইন্সটিটিউট, খাদ্য গোদাম, ছাতক থেকে খুব শীঘ্রই ট্রেন আসবে সুনামগঞ্জে। কিছুদিনের মধ্যেই বহুল প্রত্যাশিত শান্তিগঞ্জ টু রজনীগঞ্জের রাস্থার কাজ শুরু হবে। রাস্থাগুলোকে বিশালাকার করা হবে। এক কথায় আমি সুনামগঞ্জকে উন্নয়নের আলোয় আলোকিত করতে চাই। আর আমার বিশ্বাস হাওরবাসীর উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সবসময়ই পাশে ছিলেন, আছেন, থাকবেন।