|
এই সংবাদটি পড়েছেন 48 জন

স্ত্রীর ইজ্জত হারানোর মামলা করায় বিপাকে স্বামী

সিলেট নিউজঃ স্ত্রীর ইজ্জত হারানোর পর প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করায় বিপাকে পড়েছেন একজন সিএনজি অটোরিকশা চালক। মামলা করার কারণে বিবাদী পক্ষের লোকজনেরা তার বসতঘরও পুড়িয়ে ছিলো। মামলা তুলতে প্রতিনিয়ত তাকে দেয়া হচ্ছে প্রাণ নাশের হুমকি!

এমন হুমকিতে ভয়ে নিজের এবং পরিবারের সদস্যদের প্রাণ বাঁচাতে মানুষের দারে দারে বিচার প্রার্থী হচ্ছেন জালালাবাদ উপজেলার কান্দিরগাও ইউনিয়নের নদীরপাড় এলাকার সিএনজি অটোরিকশা চালক আব্দুর রকিব। এনিয়ে মামলাও করেছেন তিনি। আসামীরাও গ্রেফতার হয়েছে। বসতঘর পুড়ার কারণে দরিদ্র এই পরিবার আজ খোলা আকাশের নিচে দিনরাত কাটাচ্ছেন!

সম্প্রতি এই মামলার আসামীদের পিতা সিএনজি অটোরিকশাসহ আব্দুর রকিবকে কানিশাইল এলাকা থেকে জোরপূর্বক আটক করে নগরীর লামাবাজার এলাকায় নিয়ে সাদা কাগজে কয়েকটি স্বাক্ষর নিয়ে তাকে এবং তার পরিবারের সদস্যদের প্রানে মারার হুমকি দেন। এবিষয়ে জালালাবাদ থানায় জিডি করতে গেলে পুলিশ তার জিডিটি গ্রহন করেনি। স্থানীয় প্রশাসনের কাছ থেকে কোনো সহযোগীতা না পাওয়ায় এবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে বিচার প্রার্থী হয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

জানা গেছে, গত ১৬ মার্চ রাত ১০ টায় জালালাবাদ থানার কান্দিরগাও ইউনিয়নের নদীরপাড়ের সিএনজি অটোরিকশা চালক আব্দুর রকিবের বাড়িতে স্ত্রী সুমনা বেগম (২৩) কে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে স্থানীয় কিছু বখাটেরা। এনিয়ে জালালাবাদ থানায় দুই জনের নামোল্লেখ করে একটি মামলা হয়। মামলা করার কারণে বিবাদী পক্ষের লোকজনেরা তার বসতঘর পুড়িয়ে দেয়। এই মামলার আসামিরা হলেন- জালালাবাদ উপজেলার হেরাখলা গ্রামের সমুজ আলীর ছেলে রুমেল (২৬) ও ইরান উদ্দিনের ছেলে মমিন (২২)। মামলা নং-সিআর৫১/২০১৯। মামলার পর পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলে পাঠায়। বর্তমানে এই মামলাটি বিচারাধীন।

চলতি মাসের ৫ মে সন্ধ্যা ৭টায় নগরীর কানিশাইল এলাকা থেকে জোরপূর্বক ধরে পুলিশে সোপর্দ করার কথা বলে নগরীর লামাবাজার এলাকায় নিয়ে সাদা কাগজে কয়েকটি স্বাক্ষর নিয়ে তাকে এবং তার পরিবারের সদস্যদের প্রানে মারার হুমকি দেন জালালাবাদ উপজেলার হেরাখলা গ্রামের সমুজ আলী, ইরান উদ্দিন, ইরান উদ্দিনের ছেলে কিবরিয়া, সাইদুর রহমান, গোলাম আলীর ছেলে আহমদ আলী, মজর আলীর ছেলে মামুন, সুরুজ আলীর ছেলে এনাম উদ্দিনসহ ৪ জন।

এ ব্যাপারে সিএনজি অটোরিকশা চালক আব্দুর রকিব বলেন, স্ত্রীর ইজ্জত হারানোর পর তাদের বিরুদ্ধে মামলা করায় তারা আমার বসতঘর পুড়িয়ে দেয়। সবসময় তারা আমাকে হুমকি দিচ্ছে। গত কদিন আগে কানিশাইল এলাকা থেকে আমাকে জোরপূর্বক তুলে লামাবাজার এলাকায় নিয়ে সাদা কাগজে কয়েকটি স্বাক্ষর নেয় তারা। এসময় আমাকে আর আমার পরিবারের সদস্যদের প্রানে মারার হুমকি দেন। বসতঘর পুড়িয়ে দেওয়ার কারণে আমার তিন অবুঝ সন্তান আবির, নুসরাত ও আলভিকে নিয়ে বাসায় খোলা আকাশের নিচে দিন রাত কাটাচ্ছি।

হুমকির বিষয়ে জালালাবাদ থানায় জিডি করতে গেলে পুলিশ জিডিটি গ্রহন করেনি। স্থানীয় প্রশাসনের কাছ থেকে কোনো সহযোগীতা না পাওয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এ ব্যাপারে জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ্ মো. হারুনুর রশিদ বলেন, সিএনজি অটোরিকশা চালক আব্দুর রকিবের স্ত্রী ধর্ষন মামলার আসামিদের গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলে পাঠিয়েছি। তদন্তে জানলাম তাদের মধ্যে ভূমি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। রকিবকে জোরপূর্বক তুলে লামাবাজার এলাকায় নিয়ে সাদা কাগজে স্বাক্ষরের বিষয়টি আমার জানা নেই। পুলিশ সবসময়ই ন্যায়ের পক্ষে কাজ করছে।