|
এই সংবাদটি পড়েছেন 41 জন

কৃষকরাই বাংলাদেশের প্রাণ: শফিক চৌধুরী

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি  :: সিলেট অঞ্চলে শস্যের নিবিড়তা বৃদ্ধিকরণ প্রকল্পের আওতায় বিশ্বনাথে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে আয়োজিত ৩ দিনব্যাপী (১৮-২০ জুন) কৃষি প্রযুক্তি মেলার সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ শফিকুর রহমান চৌধুরী। আলোচনা সভা শেষে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন তিনি। মেলার স্টলে নিজেদের উৎপাদন করা ফল প্রদর্শনী করে কৃষকদের মধ্যে প্রদীপ চন্দ্র দেব ১ম, শফিক আহমদ ২য় ও ফারুক মিয়া ৩য় স্থান অধিকার করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শফিক চৌধুরী বলেন, কৃষকরাই হচ্ছেন বাংলাদেশের প্রাণের বন্ধু। কৃষকরা বাঁচলে, বাংলাদেশ বাঁচবে। তাই কৃষকদের উন্নয়নের জন্য বার বারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন কৃষি বান্ধব সরকার কাজ করে যাচ্ছে। আর বাংলাদেশের কৃষিতে উন্নয়নের যাত্রা শুরু করে ছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এজন্য আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথে স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মানের জন্য এগিয়ে যেতে হবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রমজান আলীর সভাপতিত্বে ও ও উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা শাকিল খন্দকারের পরিচালনায় মূখ্য আলোচকের বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য এস এম নুনু মিয়া। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পংকি খান, যুগ্ম সম্পাদক শাহ ফয়েজ আহমদ সেবুল, কৃষক ফারুক আহমদ, বিশ্বনাথ সাংবাদিক ইউনিয়নের সদস্য আব্বাস হোসেন ইমরান।

অনুষ্ঠানের শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করেন কৃষক কারি মনোয়ার হোসেন এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন দৌলতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আমির আলী। অনুষ্ঠানে উপজেলার ২শত কৃষকের মধ্যে জনপ্রতি ১০টি করে (৬টি মাল্টা, ২টি কমলা ও ২টি লেবু) ফলদ বৃক্ষের চারা প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা বিআরডিবি চেয়ারম্যান মহব্বত আলী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সমছু মিয়া, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক আবদুল মতিন, বন ও পরিবেশ সম্পাদক রুনু কান্ত দে, আওয়ামী লীগ নেতা ইয়াসিন আলী, শাহনেওয়াজ চৌধুরী সেলিম মেম্বার, যুবলীগ নেতা শহিদ খান আতা, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা সিজিল মিয়া, মহানগর ছাত্রলীগ নেতা সাফায়েত খান ও উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে আসা কৃষকবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার ব্যক্তিবর্গ।