|
এই সংবাদটি পড়েছেন 30 জন

আহবায়ক পদেই আটকে আছে জেলা বিএনপি

ডেইলি বিডি নিউজঃ আহবায়ক পদেই আটকে আছে সিলেট জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি। ঈদুল ফিতরের পর পরই আহবায়ক কমিটি ঘোষণার কথা থাকলেও এখন সেই কমিটি ঘোষণা হয়নি। কবে নাগাদ আহবায়ক কমিটি ঘোষণা হতে পারে তাও নিশ্চিত হতে পারছেন জেলা বিএনপির শীর্ষসারির নেতারা। শুধু বলছেন, ‘কমিটি মোটামুটি চূড়ান্ত, শিগগিরই ঘোষণা হবে।’ তবে, বিএনপির একাধিক নেতা জানিয়েছেন, আহবায়ক পদের জন্য যাদের নাম প্রস্তাব করা হয়েছিল-তাদের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে বিএনপির শীর্ষ নেতারা সন্তোষ্ট নয়। এছাড়া তাদের দু’জনের বিরুদ্ধে দলে গ্রুপিং-কোন্দেল ও বিভাজন সৃষ্টির অভিযোগ রয়েছে। তাদের পরিবর্তে দলের জ্যেষ্ট, সাংগঠনিকভাবে দক্ষ ও ত্যাগী, পরীক্ষিত একজনকে খোঁজা হচ্ছে- যাকে আহবায়ক মনোনীতি করা হবে। এ কারণেই আহবায়ক কমিটি ঘোষণা বিলম্বিত হচ্ছে।

জানা গেছে, যুক্তরাজ্যে অবস্থানরত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে সিলেট জেলা বিএনপির কমিটি ভেঙ্গে সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠনের তোড়জোড় শুরু হয়। এলক্ষ্যে একটি আহবায়ক কমিটির প্রস্তুতি নেওয়া হয়। কেন্দ্রের নির্দেশে আহবায়ক পদের জন্য কয়েকজনের একটি তালিকাও কেন্দ্রে প্রেরণ করে জেলা বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতারা।
ওই তালিকায় বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা এবং জেলা ও মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি এম এ হক, জেলা বিএনপির সাবেক আহবায়ক এডভোকেট নুরুল হক, জেলা বিএনপির জ্যেষ্ট সহ সভাপতি আবুল কাহির চৌধুরী ও জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবদুল গফ্ফারের নাম রয়েছে বলে জানিয়েছেন দলের একাধিক দায়িত্বশীল নেতা। এদের মধ্যে থেকেই একজনকে আহবায়ক করে দলীয় হাই কমান্ড জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি ঘোষণার কথা ছিল রোজার ঈদের আগেই। কিন্তু দীর্ঘদিন পরও এ কমিটি আলোরমুখ দেখেনি।

সম্প্রতি আলোচনায় এসেছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য এবং একাধিকবার জেলা ও মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতির দায়িত্ব পালনকারী, সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর নাম। তাঁর নেতৃত্বেই জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি দিতে চান দলটির শীর্ষ সারির নেতাদের অনেকেই-এমন গুঞ্জণ চলছে সিলেট বিএনপি পরিবারে।