Sun. Mar 7th, 2021

জুমার দিনে দরুদ পড়লে রহমত বর্ষণ হয়

ডেইলি বিডি নিউজঃ মুসলিমদের কাছে জুমার দিন সপ্তাহের শ্রেষ্ঠতম দিন। এই দিনকে ঈদের সমতুল্য মর্যাদা দেয়া হয়েছে। জুমার দিনে সূরা কাহাফ পাঠ করা ছাড়াও বেশ কিছু আমল রয়েছে যা করলে মহান আল্লাহর তরফ থেকে তার বান্দাদের ওপর রহমত বর্ষিত হয়।

তাই জুমার রাতে (বৃহ্স্পতিবার দিবাগত রাতে) ও (জুমার) দিনে প্রিয়তম হাবীব মহানবী (সা.)-এর শানে অধিকাধিক দরুদ পাঠ করা আমাদের জন্য কর্তব্য।

এ বিষয়ে মহানবী (সা.) ইরশাদ করেন, ‘তোমাদের সর্বশ্রেষ্ঠ দিন হল, জুমার দিন। এই দিনে তোমরা আমার প্রতি দরুদ পাঠ করো। যেহেতু তোমাদের দরুদ আমার উপর পেশ করা হয়ে থাকে।’ (আবূদাঊদ, সুনান ১৫৩১ নং)

তিনি আরো বলেন, ‘জুমার রাতে ও দিনে তোমরা আমার উপর বেশি বেশি দরুদ পাঠ করো। আর যে ব্যক্তি আমার উপর একবার দরুদ পাঠ করবে, সে ব্যক্তির উপর আল্লাহ ১০ বার রহ্‌মত বর্ষণ করবেন।’ (বায়হাকী, সিলসিলাহ সহীহাহ, আলবানী ১৪০৭ নং)।

এ ছাড়াও জুমার দিনের আমলের বিষয়ে হযরত আবু সাঈদ খুদরী (রা.) হতে বর্ণিত, নবী (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি জুমার দিন সূরা কাহাফ পাঠ করবে তার জন্য দুই জুমার মধ্যবর্তীকাল জ্যোতির্ময় হবে।’ (নাসাঈ, সুনান, বায়হাকী, হাকেম, মুস্তাদরাক, সহিহ তারগিব ৭৩৫ নং)।

অন্য বর্ণনায় আছে, ‘যে ব্যক্তি জুমার দিন সূরা কাহাফ পাঠ করবে তার জন্য তার ও কা’বা শরীফের মধ্যবর্তী জ্যোতির্ময় হবে।’ (বায়হাকী, শুআবুল ঈমান, জামে ৬৪৭১ নং)।

পাশাপাশি জুমার ফজরের প্রথম রাকাতে সূরা সাজদাহ এবং দ্বিতীয় রাকাতে সূরা দাহ্‌র (ইনসান) পাঠ করা, জুমার জন্য প্রস্তুতিস্বরূপ দেহের দুর্গন্ধ দূর করা, সেজন্য গোসল করা, আতর ব্যবহার করা, দাঁত ও মুখ পরিষ্কার করা, সুন্দর পোশাক পরিধান করা, পায়ে হেঁটে মসজিদে যাওয়া এবং আগে থেকেই মসজিদে গিয়ে উপস্থিত হয়ে ইবাদতে মশগুল হওয়া জুমার দিনে বেশ ফজিলতপূর্ণ ইবাদত।