|
এই সংবাদটি পড়েছেন 85 জন

গোয়াইনঘাটের হত্যা মামলার পলাতক আসামীদের আত্মরক্ষার্থে এসপি’র সাথে সেলফি

বিশেষ প্রতিনিধিঃ সিলেটের গোয়াইনঘাট থানার হত্যা মামলার পলাতক দুই আসামী নিজেদের রক্ষা করতে নবাগত এসপি ফরিদ উদ্দিনের সাথে সেলফি তোলায় এলাকাজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। দীর্ঘ ৫ মাস থেকে রহস্যজনক কারণে গোয়াইনঘাট থানা পুলিশ তাদের গ্রেফতার করছেনা। নবাগত পুলিশ সুপার যোগদানের পর থেকেই অপরাধীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে গিয়েছেন। কিন্তু সেই অপরাধীরা কীভাবে এসপির সাথে ছবি তুলে- এ নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠে এসেছে। আসামীরা হলেন- গোয়াইনঘাটে গাড়ি চালক শহীদ মন্ডল হত্যা মামলার প্রধান আসামী রুবেল মিয়া ও ৭ নম্বর আসামী রাজ্জাক মিয়া।

মামলা সূত্রে জানা যায়- গত ৩০ জানুয়ারি গোয়াইনঘাট উপজেলার শ্মশানঘাটে পে-লোডার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকালে গাড়ির নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে গিয়ে রাজবাড়ি জেলার গোয়ালন্দ থানার রাহালগাছি গ্রামের বাদশা মন্ডলের পুত্র শহীদ মন্ডল নিহত হন। নিহত হওয়ার পরপরই পুলিশ সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে ওসমানী হাসপাতালে ময়না তদন্তের জন্য পাঠায়। পরে গোয়াইনঘাট থানার এসআই জুনেদ আহমদ বাদী হয়ে ৯ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৮/১০ জনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। যার নং- ৩২, (৩১.০১.২০১৯)।

আরো জানা যায়- শহীদ মন্ডলকে পরিকল্পিতভাবে কোন নিরাপত্তা না দিয়েই পে-লোডার দিয়ে বালু উত্তোলন করতে দেওয়া হয়। যার কারণে পে-লোডার উল্টে গিয়ে শহীদ মন্ডল নিহত হন। এ ঘটনায় পুলিশের দেওয়া মামলার প্রধান আসামী হলেন- গোয়াইনঘাট উপজেলার মোহাম্মদপুর গ্রামের ছানু পাঠোয়ারীর পুত্র রুবেল মিয়া ও ৭নং নম্বর আসামী সানকিভাঙ্গা গ্রামের বুরহান মিয়ার পুত্র রাজ্জাক মিয়া। তারা নিজেদের রক্ষা করতে এসপি ফরিদ উদ্দিনের সাথে ছবি তুলে প্রকাশ করে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন- রুবেল ও রাজ্জাক এলাকায় প্রভাবশালী ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলতে পারেনা। এমনকি তারা হত্যা মামলার আসামী হওয়া স্বত্ত্বেও পুলিশকে ম্যানেজ করে দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছে। থানা পুলিশের সাথে তাদের দহরম মহরম হওয়ায় তারা এসপি’র সাথে ছবি তুলতে সক্ষম হয়েছে।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই যিশু দত্ত বলেন, রুবেল ও রাজ্জাক হত্যা মামলার পলাতক আসামী। তারা এখন পর্যন্ত আদালত থেকে জামিন নিয়ে আসেনি।