|
এই সংবাদটি পড়েছেন 27 জন

অতিবৃষ্টির কারণে সিলেটে পাহাড় ধসের ঝুঁকিতে দুর্ঘটনার আশঙ্কা

বিশেষ প্রতিনিধিঃ সিলেটে পাহাড়ধসের ঝুঁকিতে বসবাস করছে এক হাজার মানুষ। ছোট ছোট টিলা আর পাহাড়ের পাদদেশে বসবাস করছে সিলেটের এসব মানুষেরা। একটু বৃষ্টি হলেই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে তাদের মাঝে।

সিলেটে টিলা ধসের ঘটনা ঘটেছে। তবে এ ঘটনায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

বৃহস্পতিবার ভোরে সিলেট শহরতলীর গোয়াবাড়ি এলাকার জাহাঙ্গীরনগরে এ ঘটনা ঘটে। টিলা ধ্বসের ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।

স্থানীয় লোকজন জানান, গত বুধবারের বৃষ্টিপাতে জাহাঙ্গীরনগর এলাকার টিলার মাটি নরম হয়ে যায়। ভোরে টিলার এক ধসে পড়তে শুরু করে।

এসময় টিলার পাদদেশের লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দেয়। তবে টিলা ধ্বসের ঘটনায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘেটেনি।

টানা বৃষ্টিপাত হলে আবারও টিলা ধ্বসের আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

সিলেট শহরতলির বালুচর, আখালিয়া, নালিয়া, ভাটেরা, আলুরতল ও খাদিমপাড়া ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা আদর্শ গুচ্ছগ্রামে পাহাড়ের নিচে বসবাসকারিরা এই ঝুঁকিপূর্ণ মরণফাঁদের ভয়ে আতংকিত হয়ে পড়ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেল, ১৯৯২ সাল থেকে এখানে ঝুঁকি নিয়ে পাহাড়ে লোকজন বসবাস করে আসছেন। ওই সময়ে সিলেটের বিভিন্ন জেলা-উপজেলার মুক্তিযোদ্ধারা গুচ্ছগ্রামের এই টিলার ২০০১ নম্বর দাগের ১২ একর এবং ২০১৫-১৬ নম্বর দাগের ২ একর জমি একশ বছরের জন্য বন্দোবস্ত নেন।

বর্তমানে পাহাড়ে সকল পরিবারই শ্রমজীবী পরিবার। তাঁরা পাঁচ হাজার টাকায় ওই পাহাড়েই বসবাসের জন্য স্থানীয় লোকদের কাছ থেকে মৌখিকভাবেই জমি কিনে এসব খুপরি ঘর বানিয়ে বাস করে আসছেন। অন্তত ৭০ টি পরিবার পাহাড়ের ওপরে থাকেন। টিলার পাদদেশে বসবাস করে আরও প্রায় ৩০ টি পরিবার। স্থানীয়রা জানান, এখানে অনেক দিন ধরেই ঝুঁকি নিয়ে প্রায় একশ পরিবার বসবাস করে আসছে। পাহাড়টি সরকারের খাসজমি।

সিলেটের জেলা প্রশাসক এম,কাজী ইমদাদুল ইসলাম বলেন সিলেটে সবাইকে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে। এখানে কোথাও এরকম ঝুঁকিপূর্ণ আবাস আছে কিনা তা খোঁজ নিতে সংশ্লিষ্টদের বলে দেওয়া হয়েছে। তারা খোজ খবর নিচ্ছে’।