|
এই সংবাদটি পড়েছেন 28 জন

সিলেটে গ্যাস সিলিন্ডার জালিয়াতি: মামলায় নাম নেই মূলহোতার

বিশেষ প্রতিনিধিঃ সিলেট শহরতলীর দক্ষিণ সুরমার গ্যাস সিলিন্ডার জালিয়াতির ঘটনায় মামলা হয়েছে। তবে রহস্যজনকভাবে এ মামলায় নাম নেই মূলহোতার। কদমতলীর জকিগঞ্জ সড়কের সাঈদ ম্যানশন মার্কেটের ভেতরের টিনের ঘরে দীর্ঘদিন ধরে জালিয়াতির এ আস্তানা থেকে পালানো এক কর্মচারির স্বীকারোক্তিতে উঠে এসেছিল প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতার ভাইয়ের নাম। অথচ দক্ষিণ সুরমা থানায় দায়ের হওয়া মামলায় নাম নেই তার। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল ফজল জানিয়েছেন, তিনি জালিয়াতিতে ওই নেতার ভাইয়ের সম্পৃক্ততা পাননি।

জানা গেছে, আস্তানা ছেড়ে পালানো কর্মচারি সিলিন্ডার জালিয়াতির মূলহোতা হিসেবে গোলাপগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক শিক্ষামন্ত্রীর আস্থাভাজন খ্যাত সৈয়দ মিসবাহ উদ্দিনের ভাই গোলাপগঞ্জ কল্পনা এন্টারপ্রাইজের সত্বাধিকারী সৈয়দ জিল্লুর রহমানের নামই বলেছিলেন। স্থানীয় গণমাধ্যম ও ভিডিও ফুটেজে কর্মচারি সানির বক্তব্য সংরক্ষিত থাকলেও প্রভাবশালী হওয়ায় এ মামলায় তার নাম আসেনি।

সোমবার (২৯ জুলাই) গ্যাস জালিয়াতির বিষয়ে দক্ষিণ সুরমায় থানায় একটি মামলা দায়ের হয় (মামলা নং-২৭, তারিখ:২৯.৭.১৯)। মামলায় তিনজনকে আসামী করা হয়েছে। মামলার মূল আসামী সানি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মামুন সিলেটভিউকে জানান, আওয়ামী লীগ নেতার ভাই জালিয়াতি জড়িত আছেন বলে তার জানা নেই। তিনি আরো জানান, তিনি তদন্তের ভার পেয়েছেন ভিডিও ফুটেজে সৈয়দ জিল্লুরের নাম ও সম্পৃক্ততার পাওয়া গেলে তাকেও আসামী করা হবে। এক্ষেত্রে তিনি স্থানীয়দের এবং সাংবাদিকদের সহযোগিতা চেয়েছেন।

তবে মামলার বিষয়ে রহস্যজনক ভূমিকা পালন করেছেন দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল ফজল। মামলার ব্যাপারে তাকে জিজ্ঞেস করা হলে প্রথমে তিনি জানান, এ বিষয়ে মামলা হয়েছে তবে কে আসামী তিনি জানেন না। বিভিন্ন গণমাধ্যমে নাম আসলেও মামলায় জালিয়াতির মূলহোতার নাম নেই কেন এ প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, ওই ব্যক্তির সম্পৃক্ততার বিষয়ে তিনি নিশ্চিত নন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার মোবাইল ফোন নম্বরও তার কাছে নেই জানিয়ে তিনি ফোন রেখে দেন।

উল্লেখ্য যে, ল্লেখ্য যে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশের বিশেষ গোয়েন্দা শাখার লোকের উপস্থিতিতে রবিবার (২৮ জুলাই) রাত ১০টায় টার্মিনাল পুলিশ ফাঁড়ির এসআই শাহিন, এএসআই মনজু সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে দক্ষিণ সুরমার অভিযান চালানো হয়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয় ওই আস্তানার পেছনের দরজা দিয়ে জালিয়াতি চক্রের লোকজন পালিয়ে যায়। পরে রাত গভীর হওয়ায় অভিযান বন্ধ করে ওই আস্তানা ঘিরে রাখে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজন। সোমবার (২৯ জুলাই) সকাল ১১টায় ওই আস্তানায় সিলেট গোয়েন্দা শাখা (এনএসআই)’র উপ-পরিচালক শামসুজ্জোহা ও জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ এরশাদের উপস্থিতিতে ওই আস্তানার তালা ভেঙ্গে পুলিশ আবার অভিযান চালায়। এসময় ওই আস্তানা থেকে ওজন মাপার ২টি মিটার, বিভিন্ন কোম্পানির স্টিকার, জালিয়াতির সরঞ্জামসহ বেশ কিছু সিলিন্ডার জব্দ করা হয়।