|
এই সংবাদটি পড়েছেন 19 জন

আতপ চাল ভাঙ্গাতে ব্যস্ত চালের মিলগুলো

বিশেষ প্রতিনিধিঃ দেশে শীত মৌসুমে নানা জাতের পিঠা পুলির আয়োজন হয়ে থাকে প্রায় প্রতিটি বাড়িতে। এজন্য আটা ময়দার সাথে থাকে চালের গুড়া দিয়ে পিঠা তৈরীর কাজ। তবে কুরবানির ঈদের সময় বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলে আতপ চালের গুড়া দিয়ে রুটি তৈরী করে কুরবানির মাংস দিয়ে খাওয়ার একটি প্রচলন রয়েছে। সে ধারাবাহিকতায় প্রতি বছর কুরবানির ঈদের আগে চালের মিলগুলো ব্যস্ত থাকের চাল ভাঙ্গাতে।

আসন্ন কুরবানির ঈদকে সামনে রেখে সিলেটের সব গুলো চালের মিলগুলোতে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন চাল ভাঙ্গার কাজে। বাজারের চালের মিল ঘুরে দেখা গেছে নিজ নিজ ব্যাগে চাল ভরে সারিবদ্ধভাবে রাখছেন মানুষজন।

মিল মালিকরা জানান, সারা বছর মিলে হলুদ,মরিচ,গম ও চাল ভাঙ্গিয়ে থাকেন। তবে কুরবানির ঈদের আগে ব্যস্ত থাকতে হয় আতপ চাল ভাঙ্গার কাজে। গড়ে প্রতিদিন ৩০০ কেজি পরিমাণ চাল ভাঙ্গাতে হচ্ছে। প্রতি কেজি ১০ টাকা হারে ভাঙ্গিয়ে থাকেন। মানুষজন ঈদের সময় বাসা বাড়িতে চালের গুড়ার নানা জাতের পিঠার সাথে গুড়া দিয়ে রুটি তৈরী করেন। কুরবানির মাংস দিয়ে রুটি খেতে আলাদা স্বাদ বলেও মিল মালিকরা জানান। ঈদের ৩ থেকে ৪ দিন আগ থেকে অনেক সময় রাত জেগে মিলে কাজ করতে হয়। চাল নিয়ে এসে মানুষজন ওজন দিয়ে নিজের ব্যাগে কাগজে নাম লিখে রেখে যান। চাল গুড়া করে আবার তিনি সারিবদ্ধভাবে রেখে দেন। পরে মানুষজন এসে নিজ নিজ ব্যাগ নিয়ে যায়। মিল মালিক আরও জানান কুরবানির ঈদের সময় অনেকেই আবার নিজে শুকনো মরিচ,হলুদ ও ধনে গুড়া করে নিয়ে যান।

চাল ভাঙাতে আসা সাইফুল বলেন, কুরবানির ঈদের পর কুরবানির মাংস দিয়ে চালের গুড়ার রুটি খাওয়ার রীতি অনেক দিনের। এর স্বাদও আলাদা। বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলে এর প্রচলন রয়েছে। মোটামুটি সব মুসলিম পরিবারই চালের গুড়া দিয়ে রুটি করেন। আর তখন বন্ধু বান্ধবদেরও দাওয়াত দেওয়া হয় কুরবানির মাংস ও চালের রুটি খাওয়ার জন্য। এটা সিলেটের একটা ঐতিহ্য হিসেবে প্রচলিত আছে।