Fri. Dec 13th, 2019

নগরীর আশ-পাশে যত্রতত্র ময়লার স্তুপ দুর্গন্ধে জনসাধারণের দুর্ভোগ

আকরাম আল সাহানঃ সিলেট সদর উপজেলা ৪নং খাদিমপাড়া ইউনিয়ন ইসলামপুর মেজরটিলার আশপাশে মেইন রোডের পাশে ময়লা ফেলে স্তুপ করে রাখা হয়েছে।

এই ময়লা বাসা-বাড়ি, রেষ্টুরেন্ট সহ বিভিন্ন জায়গার বলে অনেকে বলেছেন।

সিলেট সরকারী কলেজের সামনে রেডিও অফিসের কাছে মেইন রোডের পাশে, ইসলামপুর স্কলার্সহোম স্কুলের সামনে মেইন রোডের পাশে, দিপীকা আবাসিক এলাকায় ঢুকতে মেইন রোডের পাশে এবং তোয়াক্কুল মিলের কাছে মেইন রোডের পাশে প্রত্যেকদিন এই সব ময়লা বাসা-বাড়ি, রেষ্টুরেন্ট ও বিভিন্ন জায়গায় থেকে এনে ফেলা হচ্ছে বলে অনেকে বলেছেন। এসব ময়লার দুর্গন্ধে জনসাধারণের চলাফেরা করতে অনেক অসুবিধা ও ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

আশপাশে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বাসাবাড়ি থাকায় অনেকেরও অসুবিধা হচ্ছে বলে জানা যায়। ব্যপারে স্থানীয় ২নং ওয়ার্ডের মেম্বার মতিউর রহমান রিপনের সাথে মোবাইলের মাধ্যমে কথা বলে জানা যায় যে, এসব স্থানে ময়লা কে বা কারা ফেলছে তার জানা নেই, তবে গত কয়েক মাস পূর্বে ইউনিয়ন পরিষদ ও সিলেট সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় যে সিটি কর্পোরেশনের ময়লার গাড়ী এসে এসব স্থানের ময়লা নিয়ে যাবে। কিন্তু কিছুদিন পরে ময়লা নেওয়া বন্ধ হয়ে যায় যে, চুক্তি অনুযায়ী সিটি কর্পোরেশন টাকা (বিল) পরিশোধ করেননি ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃপক্ষ।

তিনি বলেন- তাহার ২ং ওয়ার্ডের ইসলামপুর সমাজ কল্যান সংঘ ও ফালগুনি যুব সংঘের কয়েকটি ভ্যানগাড়ীর মাধ্যমে প্রত্যেক বাসাবাড়ির ময়লা সংগ্রহ করে টিলাগড়ে নিদিষ্ট ময়লা রাখার ঘড়ে ফেলা হয়। এভাবে প্রত্যেক এলাকায় এই রকম ব্যবস্হা করে নির্দিষ্ট স্থানে ময়লা ফেলা হলে পরিবেশ ভালো ও জনসাধারণ ভোগান্তি কমবে বলে মনে করেন।

সুস্থ, সুন্দর ও নিরাপদভাবে চলাফেরা করা মানুষের অধিকার (মানবাধিকার)।

উন্মুক্ত বা যে কোন স্থানে ময়লা ফেলে পরিবেশ দুষিত করা বা জনসাধারণকে কষ্ট দেওয়া মানবাধিকার লঙ্ঘনের শামিল ও শাস্তি যোগ্য অপরাধ।

তাই এই সব ময়লা উন্মুক্ত স্থানে না ফেলে নির্দিষ্ট জায়গায় ফেলার জন্য ও জনসচেতনতা করা বা যথাযথ ব্যবস্হা গ্রহন করার জন্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হচ্ছে জনসাধারণের পক্ষ থেকে।