Mon. Dec 16th, 2019

চমক নয় শ্রমের মূল্যায়ন চায় তৃনমূল

নিজস্ব প্রতিবেদক:: রাত পোহালেই ১০ নভেম্বর কুলাউড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ও কাউন্সিল। কাউন্সিলে একাধিক সভাপতি প্রায় হাফ ডজন সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী তাদের প্রার্থীতা নানা কৌশলে প্রকাশ করে প্রচারনা করছেন। সাধারণ সম্পাদক প্রার্থীদের মধ্যে অন্যতম শক্তিশালী প্রার্থী অধ্যক্ষ সিপার উদ্দিন আহমদ।

যিনি দীর্ঘ ১৫ বছর আওয়ামীলীগের পদবিহীন থেকে সক্রিভাবে রাজনীতি করে যাচ্ছেন। সকল সংকটে তার সরব উপস্থিতির স্বাক্ষ্য দিচ্ছে আওয়ামীলীগের সর্বস্তরের নেতা কর্মীরা। বিশেষ করে বিগত পৌরসভা নির্বাচনের পর কুলাউড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সংকটময় পরিস্থিতিতে মোকাবিলায় তিনি দলের সাধারণ সম্পাদকের সাথে থেকে নিবিড়ভাবে সকল কর্মসূচী বাস্তবায়নে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করেন। সর্বজন স্বীকৃত তিনি একজন দক্ষ ও পরিশ্রমী সংগঠক।

আওয়ামীপরিবারের মূলধারার নিবিদিত প্রাণ। তিনি শেখ রাসেল শিশু কিশোর সংগঠনের সাবেক সভাপতি, কুলাউড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়কের দায়িত্ব অত্যন্ত সুনাম ও সফলতার সাথে পালন করেন। তাঁর সকল কর্মে তিনি সৎও নিষ্ঠাবান হিসাবে সর্বমহলে পরিচিতি। ছাত্রলীগের দায়িত্ব থাকা অবস্থায় বিএনপির মামলা ও হামলার শিকার হন বহুবার। তাঁর পিতা কুলাউড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের বর্তমান কমিটির উপদেষ্টা ও কুলাউড়া পৌর আওয়ামীলীগের ৮নং ওয়ার্ডের সাবেক সভাপতি । ছোট ভাই শাহীন আহমদ কুলাউড়া পৌর যুবলীগের আহবায়ক। সাংগঠনিকভাবে সৎ দক্ষ; দলের নিবেদিত ত্যাগী কর্মীবান্ধব নেতা হিসেবে তৃনমূল অধ্যক্ষ সিপার উদ্দিন আহমেদেকে দলের সাধারণ সম্পাদক হিসাবে পেতে চায় ।

ভাটেরা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন যখন দলের দুঃসময়ে যখন সুবিধাভাগীরা যখন আড়ালে থেকে তামাশা দেখতেন যখন উপজেলা পর্যায়ের হাতেগুনা কয়েকজন নেতা সাহসী ভূমিকা পালন করেন যখন সিপার শক্ত হাতে সাধারণ সম্পাদক রেনু ভাইয়ের পাশে থেকে কাজ করতে আমরা দেখেছি তিনি আজ ও সহযোগি সংগঠনের নেতা কর্মীর বিপদে আপদে ঝাপিয়ে পড়েন। তিনি আরো জানান আমরা কোন চমক চাই না, আমরা কর্মের মূল্যায়ন চায় ।