Wed. May 27th, 2020

কেউ গেল না কাছে, রাস্তার পড়ে থাকা নারীকে উদ্ধার করলেন ওসি

ডেইলি বিডি নিউজঃ শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার ভূমখাড়া ইউনিয়নের নয়াকান্দি এলাকার রাস্তার পাশে অচেতন অবস্থায় পড়ে ছিলেন এক নারী। পথচারীরা তা দেখে দ্রুতই পথটুকু পার হচ্ছিলেন,আশপাশের লোকজনও নিরাপদ দূরত্বে চলে যান। সবার মনেই করোনার ভয়! শেষ পর্যন্ত খবর পেয়ে নড়িয়া থানার ওসি অচেতন ওই নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। বুধবার দুপুরে ঝড়ো বৃষ্টির মধ্যেই ঘটে এই ঘটনা।

নড়িয়া থানার ওসি হাফিজুর রহমান সমকালকে বলেন, স্থানীয় এক ব্যক্তি অজ্ঞাত পরিচয়ে ওই নারীকে রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখে তাকে ফোনে জানান। তিনি সংবাদদাতাকে অনুরোধ করেন নারী জীবিত রয়েছেন কি-না তা যাচাই করতে। কিন্তু করোনাভাইরাসের আতঙ্কে ওই ব্যক্তি নারীর কাছে যাচ্ছিলেন না। শেষ পর্যন্ত তিনি থানা থেকে পুলিশ সদস্যদের নিয়ে ঘটনাস্থলে যান।

তিনি বলেন, আনুমানিক ২২ বছর বয়সী ওই নারী রাস্তার পাশে অচেতন অবস্থায় পড়ে ছিলেন,পাশেই একটি পুটলির মতো ব্যাগ ছিল। তিনি ঘটনাস্থলে যেতে যেতে প্রচণ্ড বৃষ্টি শুরু হয়। ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখেন, অজ্ঞাত নারী জীবিত রয়েছেন। তাকে বৃষ্টি থেকে রক্ষা করতে তাৎক্ষণিকভাবে কলাপাতা কেটে ঢেকে দেওয়া হয়। পুলিশ দেখে এক পর্যায়ে কিছু লোক ছাতা নিয়ে ঘটনাস্থলে জড়ো হন। তখন একটি ছাতা নিয়ে তিনি নারীকে বৃষ্টি থেকে রক্ষার চেষ্টা করেন। পরে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়। রাত ৮টা পর্যন্ত সেখানে আইসোলেশন ওয়ার্ডে তার চিকিৎসা চললেও জ্ঞান ফেরেনি।

ওসি বলেন, ওই নারীর সঙ্গে থাকা ব্যাগ তল্লাশি করে জন্মনিবন্ধনের কাগজ পাওয়া গেছে। এতে নাম শারমিন সুলতানা, পিতা-চান মিয়া, গ্রাম কাঠহুগলি, গোলার বাজার, নড়িয়া-শরীয়তপুর লেখা রয়েছে। ঠিকানা অনুযায়ী পুলিশ খোঁজ নিলেও বাড়ির নাম না থাকায় কেউ চিনতে পারেনি। পরিচয় শনাক্তের চেষ্টা চলছে।

শরীয়তপুরের পুলিশ সুপার এসএম আশরাফুজ্জামান বলেন, সম্প্রতি নড়িয়া উপজেলাের ভোজেশ্বর বাজারে রাস্তায় পড়ে থাকা এক অন্তঃস্বত্ত্বা ভবঘুরে নারীকেও পুলিশ উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। ওই নারী সন্তান জন্মদানের পর সুস্থ রয়েছেন।