Wed. Jul 8th, 2020

নদীভাঙনের তাৎক্ষণিক

ডেইলি বিডি নিউজঃ নদীভাঙনের তাৎক্ষণিক খবরের জন্য ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানসহ স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবকদের সঙ্গে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখতে হবে বলে জানিয়েছেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক।

তিনি বলেন, তা না হলে একজন চীফ ইঞ্জিনিয়ারের পক্ষে পুরো এলাকা ঘুরে খবর রাখা কষ্টসাধ্য।

রোববার (২৮ জুন) পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আরএডিপিভুক্ত প্রকল্পসমূহের অগ্রগতির ওপর পর্যালোচনা সভার সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ডকে আন্তরিকভাবে কাজ করার তাগিদ দিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, নদীভাঙনের তাৎক্ষণিক খবরের জন্য ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানসহ স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবকদের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখতে হবে। কেননা একজন চীফ ইঞ্জিনিয়ারের পক্ষে পুরো এলাকা ঘুরে খবর রাখা কষ্টসাধ্য। সকল সংকটে জেলা প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আগে দেখা যেত প্রকল্প পাস হয়ে প্রকল্প শুরু হতে এক বছর চলে যেত, এখন সেটা আমরা কমিয়ে ৩ মাসে এনেছি। কিন্তু এটা অনেক সময়। আমি মনে করি, প্রকল্প পাসের ১৫ দিনের মধ্যে প্রকল্প পরিচালক নিযুক্ত করতে হবে যাতে তিনি প্রকল্পের কাজকে গতিশীল করতে পারেন।

এ সময় পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কবির বিন আনোয়ার, অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) মাহমুদুল ইসলাম, পানি উন্নয়ন বোর্ডের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পশ্চিমাঞ্চল) হাবীবুর রহমানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া অনলাইনে সংযুক্ত ছিলেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক এ এম আমিনুল হকসহ সকল প্রধান প্রকৌশলীরা।

কাজ বেগবান করার আহ্বান জানিয়ে পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম বলেন, কাজ বেগবান ও গুণগত মান রাখতে আমরা টাক্সফোর্স লোকবল বাড়িয়েছি। ইতোমধ্যে আমি ৪২টি এলাকা পর্যবেক্ষণ করেছি। আমার কাছে কোনো ফাইল পড়ে থাকে না। প্রধান প্রকৌশলীরা আরও বেশি সাইট পরিদর্শন করবেন এবং কাজের সচিত্র অগ্রগতি প্রতিবেদন দেবেন। আমরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাজের গতিশীলতা আনতে বিকেন্দ্রীকরণ নিয়ে ভাবছি।

প্রসঙ্গত, জুন ২০২০ সময়সীমার মধ্যে প্রায় ৩৪টি প্রকল্প শেষ হওয়ার কথা থাকলেও করোনা প্রাদুর্ভাবে উদ্ভূত প্রেক্ষিতে ১৪টি প্রকল্প সম্পন্ন হয়েছে। বাকি অসমাপ্ত প্রকল্পগুলোর সময়সীমা বাড়ানোর জন্য আবেদন করা হয়েছে।

এ বিষয়ে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কবির বিন আনোয়ার বলেন, প্রকল্প পরিচালক নিয়োগের সঙ্গে সঙ্গে কালক্ষেপণ না করে টেন্ডার করতে হবে। একাধিক প্রকল্পে দেখা যায় প্রকল্প পরিচালক নিয়োগের পরেও কাজের অগ্রগতি নেই যা দুঃখজনক।