Fri. Aug 7th, 2020

বন্যার্তদের যেন ত্রাণের ঘাটতি না হয়ঃ প্রধানমন্ত্রী

ডেইলি বিডি নিউজঃ চলমান বন্যায় দেশের মানুষের যেন কোনো ক্ষতি না হয় সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার (২০ জুলাই) মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনানুষ্ঠানিক আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী বন্যায় ত্রাণসহ অন্য কার্যক্রমে সন্তোষ প্রকাশ করে এই নির্দেশনা দিয়েছেন। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সচিবালয় প্রান্তে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভায় সভাপতিত্ব করেন। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যে অনলাইনে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

সাংবাদিকের প্রশ্নে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, আজ বন্যা নিয়ে একটু আলোচনা হয়েছে। বন্যাটা নিয়ে আমরা যেন একটু সবাই প্রস্তুত থাকি।

মন্ত্রিসভায় অনানুষ্ঠানিক আলোচনা হয়েছে। রিলিফ, রেসকিউ অপারেশন-এগুলো কীভাবে হচ্ছে? উনি সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, দেখা যাচ্ছে যমুনা ও পদ্মার পানি, মেঘনার পানি আসছে না। মেঘনার পানি যেটা ছিল সেটা ফ্লাশ ফ্লাডের পানি ছিল ৬/৭ দিন। যমুনা দিয়ে পানি বেশি আসছে।

অলরেডি জেলা প্রশাসন, পানি উন্নয়ন বোর্ড, স্বাস্থ্য বিভাগ- তারা এ বিষয়ে প্রস্তুত। আমরাও রেগুলার মনিটর করছি।

প্রধানমন্ত্রী কোনো নির্দেশনা দিয়েছেন- প্রশ্নে তিনি বলেন, হ্যাঁ এটাই।

যাতে কোনোভাবেই মানুষের কোনো ক্ষতি না হয় রিলিফের যেন কোনো ঘাটতি না হয়। বিশেষ করে মানুষ যারা চরে থাকে, এরাই বন্যার সময় বাঁধের দিকে চলে আসে। যে স্কুলগুলো আছে সেখানে চলে এসেছে। সেখানে যেন তাদের জীবন-জীবিকা বা খাওয়া-দাওয়া অসুবিধা না হয় এবং পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট যেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, সবাইকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, তারা হেডকোয়ার্টারে থাকবে এবং ইউনিয়ন লেভেলে যারা কাজ করে তারা যেন সব সময় এলাকায় থাকেন।

তিনি বলেন, পদ্মায় ৬ দশমিক ৭ মিটার পানি হাই। নরমালি থাকে ১ মিটার। আর বিপৎসীমার ১৬ সেন্টিমিটার ওপরে রয়েছে পানি। পানির স্পিড বেশি, ৩ দশমিক ২ থেকে ৩ দশমিক ৩। ৩ দশমিক ৩ হলো, একটা জিনিস যদি রাখেন তাহলে এক সেকেন্ডে ২০ ফুট দূরে চলে যাবে। ওখানে শুধু পানি হলে প্রবলেম ছিল, না পানির সঙ্গে অনেক উপাদান রয়েছে। এভাবে যদি যায় তাহলে একদম সব ম্যাসাকার করে নিয়ে যাবে। শুধু পানি থাকলেও এটা কম থাকে যদি পানির সঙ্গে মাটি থাকে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের আগে সেতু বিভাগের থাকার সময়ে পদ্মায় কাজ করার অভিজ্ঞতা নিয়ে তিনি বলেন,সে বিষয়ে আমার প্র্যাকটিক্যাল অভিজ্ঞতা রয়েছে।