Sat. Oct 24th, 2020

দেশের উন্নয়নে রাস্তা-ব্রিজ নির্মাণে সংশ্লিষ্ট সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে

ডেইলি বিডি নিউজঃ স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, দেশের উন্নয়নে জাতীয় স্বার্থে রাস্তা-ব্রিজ নির্মাণে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা প্রতিষ্ঠান, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় এবং সংশ্লিষ্ট সকলকে সঙ্গে নিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। ক্রমবর্ধমান গ্রামীণ অর্থনীতি সচল রাখতে দেশের প্রতিটি গ্রাম পর্যন্ত উন্নত সড়ক যোগাযোগ স্থাপনের বিকল্প নেই।

গ্রামীণ, ইউনিয়ন, উপজেলা ও ইন্ডাস্ট্রিয়াল এরিয়ার সড়ক টেকসইভাবে নির্মাণের জন্য ডিজাইন পরিবর্তনের বিষয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগ, পরিকল্পনা কমিশন, এলজিইডি এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগের সমন্বয়ে সভা করেছেন তাজুল ইসলাম।

মন্ত্রীর সভাপতিত্বে বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) স্থানীয় সরকার বিভাগের সম্মেলন কক্ষে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় তাজুল ইসলাম বলেন, ‘দেশে এক সময় রাস্তা-ব্রিজ লো কস্টে নির্মাণ করা হতো। যার ফলে এসব রাস্তা-ব্রিজ টেকসই হতো না। তাই স্থানীয় পর্যায়ের সহ সকল সড়ক টেকসইভাবে নির্মাণের জন্য সঠিক প্রাক্কলন ব্যয় নির্ধারণ করা প্রয়োজন।’

এ সময় বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়কে (বুয়েট) দিয়ে গ্রামীণ সড়কের ডিজাইন সংশ্লিষ্ট সমীক্ষা করা হয়েছে উল্লেখ করে গ্রামীণ রাস্তা ১০ ফিট, ইউনিয়ন পর্যায়ে ১২ ফিট, উপজেলা পর্যায়ে ১৮ থেকে ২০ ফিট এবং ইন্ডাস্ট্রিয়াল এরিয়ার জন্য ১৮ থেকে ৩৬ ফিট করার প্রস্তাব করেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী।

তাজুল ইসলাম বলেন, নিম্নমানের কাজ করলে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যেমন শাস্তি দেয়া হবে, তেমনি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে দ্বিগুণ জরিমানার আওতায় আনা হবে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, অনেক কর্মকর্তা এবং ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ভালো কাজ করছে। কিন্তু গুটি কয়েক মানুষের জন্য পুরো প্রতিষ্ঠানের সুনাম নষ্ট হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের চলমান প্রকল্পগুলো মূলত বর্তমান সরকারের ২০১৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে অন্তর্ভুক্ত ছিল।‘আমার গ্রাম আমার শহর’ তৈরিতে নির্বাচনী ইশতেহারে যে বিশেষ অঙ্গীকার ছিল সে অনুযায়ী দেশের প্রতিটি গ্রাম পর্যন্ত উন্নত সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপনে কাজ করছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

সভায় স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সিনিয়র সচিব) শামীমা নার্গিস, এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগের প্রধান প্রকৌশলীসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।