Fri. Sep 18th, 2020

২০৪১ সালের মধ্যে দেশকে উন্নত রাষ্ট্রে রূপ দিতে কাজ করছে সরকার

ডেইলি বিডি নিউজঃ ২০৪১ সালের মধ্যে দেশকে উন্নত রাষ্ট্রে রূপ দিতে কাজ করে যাচ্ছে সরকার। এ লক্ষ্যে ‘রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবে রূপায়ণ: বাংলাদেশের প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ২০২১-২০৪১’ প্রকাশ করেছে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়। সেখানে বলা হয়েছে, ২০৪১ সালের মধ্যে দেশকে কোথায় নিয়ে যেতে চায় সরকার।

প্রেক্ষিত পরিকল্পনায় (২০২১-২০৪১) মানবসম্পদ উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী, দেশের মানুষের সম্ভাব্য আয়ু ২০৩১ সালের মধ্যে ৭৫ বছর এবং ২০৪১ সালে ৮৩ বছরে নিয়ে যাওয়া। জনসংখ্যার বৃদ্ধির হার ২০৩১ সালের মধ্যে ১ শতাংশে নিয়ে আসা এবং ২০৪১ সাল পর্যন্ত এই হারই ধরে রাখা। মাতৃমৃত্যুর হার ২০৩১ সালে প্রতি লাখে ৭০ জন এবং ২০৪১ সালে তা কমিয়ে ৩৬ জনে নিয়ে আসা। শিশুমৃত্যুর হার ২০৩১ সালের মধ্যে প্রতি হাজারে (জীবিত জন্ম) ১৫ জনে নিয়ে আসা ও ২০৪১ সালে তা চারজনে নিয়ে আসা।

পাঁচ বছরের কম বয়সীদের কম ওজন (৬ থেকে ৫৯ মাস) ২০৩১ সালে পাঁচজনে নিয়ে আসা ও ২০৪১ সালে তা কমিয়ে দুইজনে নিয়ে আসা। খর্বকায় ২০৩১ সালের মধ্যে ১৫ জনে নিয়ে আসা ও ২০৪১ সালে তা দুইজনে নিয়ে আসা। মোট উর্বরতার হার ২০৩১ সালে ১ দশমিক ৮ শতাংশে এবং ২০৪১ সাল পর্যন্ত তা ধরে রাখা। স্বাস্থ্যবীমার কাভারেজ ২০৩১ সালের মধ্যে ৫০ শতাংশে এবং ২০৩১ সালের মধ্যে ৭৫ শতাংশে নিয়ে আসা। স্বাস্থ্যের জন্য পাবলিক ব্যয় ২০৩১ সালে ১ দশমিক ৫ শতাংশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে তা ২ শতাংশ করা।

শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের বিষয়ে তাতে বলা হয়েছে, প্রাপ্তবয়স্কদের সাক্ষরতার হার ২০৩১ সালের মধ্যে শতভাগ নিশ্চিত করা এবং তা ২০৪১ সাল পর্যন্ত ধরে রাখা। নেট প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তির হার ২০৩১ সালের মধ্যে শতভাগ নিশ্চিত করা এবং তা ২০৪১ সাল পর্যন্ত ধরে রাখা। প্রাথমিক বিদ্যালয় ছাড়ার হার ২০৩১ সালের মধ্যে শূন্যে নিয়ে আসা এবং ২০৪১ পর্যন্ত তা ধরে রাখা। নেট মাধ্যমিক শিক্ষা ২০৩১ সালের মধ্যে ৯০ শতাংশ নিশ্চিত করা এবং ২০৪১ সালে তা ৯৫ শতাংশে নিয়ে যাওয়া। মাধ্যমিক বিদ্যালয় ছাড়ার হার ২০৩১ সালে শূন্যে নিয়ে আসা এবং ২০৪১ সাল পর্যন্ত তা ধরে রাখা।

উচ্চশিক্ষার হার ২০৩১ সালে ৫০ শতাংশ নিশ্চিত করা এবং ২০৪১ সালের মধ্যে ৮০ শতাংশ নিশ্চিত করা। উচ্চশিক্ষায় নারী শিক্ষার্থীদের শতকরা ভাগ ২০৩১ সালের মধ্যে ৫০ শতাংশ নিশ্চিত করা এবং ২০৪১ সাল পর্যন্ত তা ধরে রাখা। টেকনিক্যাল ও ভোকেশনাল শিক্ষায় ভর্তির হার ২০৩১ সালের মধ্যে ৩০ শতাংশ করা এবং ২০৪১ সালে তা ৪১ শতাংশ করা। শিক্ষায় জনসাধারণের ব্যয় ২০৩১ সালে মোট জিডিপির ৩ দশমিক ৫ শতাংশ করা এবং ২০৪১ সালে ৪ শতাংশ করা।

এই পরিকল্পনা প্রকাশ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস। সভার সভাপতিত্ব ও সঞ্চালনা করেন পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (জ্যেষ্ঠ সচিব) ড. শামসুল আলম।