Tue. Oct 27th, 2020

জৈন্তাপুরে আসামি চিনিয়ে নেয়ার সাড়ে ৫ঘন্টা পর ফেরৎ!

ডেইলি বিডি নিউজঃ সিলেটের জৈন্তাপুরে পুলিশের কাছ থেকে হাতকড়া পরানো আসামিকে চিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটে মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে জৈন্তাপুর উপজেলার ৫ নম্বর ফতেহপুর ইউনিয়নের হরিপুর বাজার নিজাম উদ্দিনের মুদির দোকানের সামনে। তবে পুলিশের দাবি আসামিকে হাতকড়া পরানোর সময় সে দৌড়ে পালিয়ে যায়। সেই ব্যক্তি হল, অত্র ইউনিয়নের লামাশ্যামপুর গ্রামের মৃত আব্দুল্ল্যাহর ছেলে আব্দুল জলিল (৪২)।

স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্র জানায়, বিশেষ ক্ষমতা আইনের একাধিক মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি আব্দুল জলিল দীর্ঘদিন ধরে পলাতক ছিলেন। মঙ্গলবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জৈন্তাপুর মডেল থানার এসআই রাসেল একদল পুলিশ সদস্য নিয়ে তাকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করেন। একপর্যায় জলিলের সাথে থাকা কয়েকজন দুর্বৃত্ত সন্ত্রাসী পুলিশের কাছ থেকে তাকে জোর পূর্বক চিনিয়ে নেয়। শুরু হয় হট্টগুল। এ ঘটনার সংবাদ পেয়ে জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মহসিন আলীসহ সিলেট র্যাব-৯’র একটি দল দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পৌছে। পরে ভোর আনূমানিক ৬টার দিকে স্থানীয় এলাকাবাসীর সহযোগীতায় তাকে তুলে দেয়া হয় পুলিশের হাতে। এর আগে প্রায় সাড়ে ৫ ঘন্টা অপেক্ষার প্রহর গুনতে হয় র্যাব-পুলিশকে। এ ঘটনায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, তাকে থানা হেফাজতে নেয়ার পরও তার হাতে কোন হাতকড়া পরানো ছিলনা বলে জানায়।

এবিষয়ে জৈন্তাপুর মডেল থানার এসআই রাসেলের সহীত মুঠোফোনে কথা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, হাতকড়া পরানোর সময় সে দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়দের মাধ্যমে তাকে উদ্ধার করা হয়। এসময় তিনি বলেন, বুধবার সকালে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এনিয়ে জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মহসিন আলীর সাথে মুঠোফোনে যোগযোগ করলে তিনি বলেন, জলিলের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে থানায় তিনটি মামলা রয়েছে। সে ওই মামলাগুলোর ওয়ারেন্টভূক্ত আসামি ছিল। এ ঘটনার সংবাদ পেয়ে সাথে সাথে তিনি ঘটনাস্থলে পৌছান । পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশীদ ও এক আওয়ামী লীগ নেতার সহযোগীতায় স্থানীয়রা তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।