Wed. Jan 27th, 2021

আমরা কারো সঙ্গে যুদ্ধ চাই নাঃ প্রধানমন্ত্রী

ডেইলি বিডি নিউজঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমরা কারো সঙ্গে যুদ্ধ করতে চাই না। জাতির পিতা আমাদের পররাষ্ট্রনীতিতে বলেছেন, সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়। আমরা সেই নীতিতে বিশ্বাস করি। কিন্তু যদি বাংলাদেশ কখনো বহিঃশত্রুর দ্বারা আক্রান্ত হয় তাকে মোকাবিলা করার মতো সক্ষমতা অর্জন করতে চাই।

বৃহস্পতিবার (৫ নভেম্বর) দুপুরে বানৌজা ওমর ফারুক, আবু উবাইদাহ, প্রত্যাশা, দর্শক এবং তল্লাশী-এর কমিশনিং দেওয়ার সময় এ কথা বলেন তিনি।প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে চট্টগ্রামের নেভাল বার্থ-১’ যুক্ত হন।

এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের জলসীমা সুরক্ষায় নৌবাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে নৌবহরে সংযোজিত হলো নতুন দুইটি আধুনিক ফ্রিগেট বানৌজা ওমর ফারুক, আবু উবাইদাহ ও একটি করভেট যুদ্ধজাহাজ প্রত্যাশা এবং দুইটি জরিপ জাহাজ বানৌজা দর্শক ও তল্লাশী।

এর মধ্য দিয়ে যুদ্ধজাহাজসমূহ নৌবাহিনীতে আনুষ্ঠানিকভাবে অপারেশনাল কার্যক্রম শুরু করলো। এর আগে চট্টগ্রামে বানৌজা ঈসাখান নৌ জেটিতে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল এম শাহীন ইকবাল জাহাজসমূহের অধিনায়কদের হাতে কমিশনিং ফরমান তুলে দেন এবং নৌবাহিনীর রীতি অনুযায়ী আনুষ্ঠানিকভাবে নামফলক উন্মোচন করেন।

প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের ভৌগোলিক অবস্থার কথা তুলে ধরে বলেন, আমাদের একে তো নদীমাতৃক দেশ, অপরদিকে এই বিশাল সমুদ্রসীমা রক্ষা করা এবং দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা। জাতির পিতার নিজেরই স্বপ্ন ছিল এবং পাকিস্তান আমলেও তিনি যখন ছয় দফা দাবি পেশ করেছিলেন সেই দাবিতেও নৌবাহিনীর ঘাটি এই ভূখণ্ডে হবে এটাও তার দাবি ছিল।

স্বাধীনতার পর জাতির পিতার নেতৃত্বে যুদ্ধ বিধস্ত দেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, আমাদের সমুদ্রসীমায় বাংলাদেশের যে অধিকার আছে, এই অধিকারের ব্যাপারেও কিন্তু তিনি প্রথম সমুদ্রসীমা আইন করেন ১৯৭৪ সালে। এমনকি জাতিসংঘেও তখন সমুদ্রসীমা আইন হয়নি। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর সেই দূরদর্শী নেতৃত্বে আমরা দেখেছি, তিনি ৭৪ সালেই এই আইনটা করে দিয়ে যান। যার ফলে ১৯৭৫’র পর ২১ বছর পার হয়ে যায়, জাতির পিতাকে হত্যা করে যারা ক্ষমতায় এসেছিল তারা কিন্তু এইসব ব্যাপারে চিন্তাও করেনি, কোন উদ্যোগও গ্রহণ করেনি। সমুদ্রসীমায় বাংলাদেশের যে অধিকার; সেই অধিকারটা যে রাখতে হবে, রক্ষা করতে হবে। সেরকম ব্যবস্থা কেউ নেয়নি। আওয়ামী লীগ একমাত্র যখন ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসেছে তখন থেকেই এই বিষয়টার উপর আমরা কাজ শুরু করি।

১৯৯৬ সালের পর পরবর্তীতে দ্বিতীয় বার সরকার গঠন করার পর যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের বিভিন্ন দিক উল্লেখ করে সমুদ্রসীমা অর্জন করার কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, আমরা চেয়েছি যে আমাদের এই সমুদ্রসীমা শুধু রক্ষা করা না, সমুদ্র সম্পদটাও যেন আমাদের অর্থনৈতিক উন্নয়নের কাজে আমরা অর্জন করতে পারি। তার জন্য আমাদের কাজ করতে হবে এবং এই ক্ষেত্রে আমরা ব্লু-ইকোনমি ধারণা নিয়েছি এবং তার উপর কাজ করে যাচ্ছি। কারণ আমাদের অর্থনীতিতে অবদান রাখতে হবে; এই সমুদ্রের যে অপার সম্ভাবনা রয়েছে। যে সমস্ত সমুদ্র সম্পদ আমাদের রয়েছে, সেই সম্পদ আহরণ করা এবং সেইগুলোকে কাজে লাগানো; এটাই আমাদের লক্ষ্য। সেই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।