Wed. Dec 2nd, 2020

ওসমানীনগরের গৃহহীনদের মুখে হাসি ফুটবে মুজিববর্ষে

ডেইলি বিডি নিউজঃ যার একখন্ড জমি নেই, নিজের কোন বসত ঘর নেই সেই বুঝে তার কষ্ট কত। সিলেটের ওসমানীনগরে এমন কষ্টে থাকা পরিবার গুলোর কষ্টের দিন শেষ হওয়ার দ্বারপ্রান্তে। মুজিববর্ষে তারাও হবে ঘরসহ ভূমির মালিক। দীর্ঘ দিনের কষ্টের অবসান ঘটে তাদের মুখেও ফুটবে হাসির রেখা। এই লক্ষ্যে ঘর নির্মাণসহ অবৈধ দখলে থাকা সরকারি ভূমি উদ্ধার অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে উপজেলা প্রশাসন। প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকার বাস্তবায়নে উপজেলার কোন মানুষ গৃহহীন থাকবে না বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. তাহমিনা আক্তার।

জানা যায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অঙ্গীকার বাস্তবায়নে মুজিববর্ষে সকল গৃহ ও ভূমিহীনদের (‘ক’শ্রেণির) ঘরসহ ভূমি উপহার দিতে সরকারি জায়গায় ঘর নির্মাণের কাজ চলছে। প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। দুর্যোগ সহনীয় প্রতিটি ঘরে ব্যয় ধরা হয়েছে ১লাখ ৭১ হাজার টাকা। ইতোমধ্যে সরকারি জায়গায় তাজপুর ইউনিয়নের কাশিপাড়ায় ১০টি এবং দয়ামীর ইউনিয়নের বড় দিরারাই খালপাড় এলাকায় ১০টি ঘর নির্মাণের কাজ চলছে। উপজেলার প্রকৃত গৃহ ও ভূমিহীনদের জন্য আরো ঘর নির্মাণের জন্য প্রভাবশালীদের দখলে থাকা সরকারি ভূমি উদ্ধার করা হচ্ছে। সম্প্রতি অভিযান চালিয়ে সাদিপুর ইউনিয়নের ভেড়ারচকে দেড় একর, বুরুঙ্গা ইউনিয়নে তিলাপাড়ায় ৭০ শতক, পেয়ারাপুরে ৫০ শতক, দয়ামীর ইউনিয়নের চিন্তামনিতে ৪০ শতক ও দিরারাই এলাকায় প্রায় দেড় একরসহ প্রায় সাড়ে ৯ একর ভূমি উদ্ধার করা হয়েছে এবং অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। মুজিব বর্ষেই ঘর গুলো তৈরী করে সুবিধাভোগীদের বুঝিয়ে দেয়া হবে। জনপ্রতিনিধি কর্তৃক সুবিধাভোগীদের তালিকা প্রণয়ন করা হলেও যাছাই বাছাইয়ের মাধ্যমে প্রকৃত সুবিধাভোগীদের চিহ্নিত করে এর সংখ্যা নিরূপণ করার জন্য কাজ চলছে বলে প্রশাসনিক সূত্রে জানা গেছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা যায়, ইতোপূর্বে জমি আছে ঘর নেই এমন ১৪৫টি পরিবারকে বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় দুর্যোগ সহনীয় ঘর তৈরী করে দেয়া হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. তাহমিনা আক্তার বলেন, প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকার কোন মানুষ গৃহ ও ভূমিহীন থাকবে না। মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে সরকারি জায়গায় ঘর নির্মাণ এবং অবৈধ দখলে থাকা সরকারি উদ্ধার অভিযান চলছে। এখন পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৯ একর জায়গা উদ্ধার করা হয়েছে। ২০টি ঘর নির্মাণ কাজ চলছে এবং উদ্ধারকৃত ভূমিতে ঘর নির্মাণের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।