Sat. Mar 6th, 2021

সুনামগঞ্জে চলন্ত বাসে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে মামলা

ডেইলি বিডি নিউজঃ সিলেট থেকে দিরাইগামী বাসে এক ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে ওই বাসের চালক ও হেলপারের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

শনিবার (২৬ ডিসেম্বর) রাতে ওই ছাত্রীর বাবা দিরাই থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলাটি দায়ের করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো.মিজানুর রহমান জানান,নির্যাতিতার বাবা বাদী হয়ে চালক ও হেলপারকে আসামি করে মামলা করেছেন। আসামিদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশেরি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

পুলিশ জানায়,শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সিলেটের লামাকাজী থেকে দিরাইয়ে আসার সময় দিরাই পৌরসভার সুজানগর গ্রামের পাশে বাসে একা পেয়ে চালক ও হেলপার ওই ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। ওই সময় চলন্ত বাস থেকে মেয়েটি লাফিয়ে পড়েন। পরে আহত অবস্থায় মেয়েটিকে দিরাই হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। নির্যাতিত মেয়েটির বাড়ি দিরাই পৌর শহরে। তিনি দিরাই ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থী।

এদিকে জড়িতদের গ্রেফতারের দাবিতে উত্তাল হয়ে উঠেছে গোটা পৌরশহর। গতকাল সন্ধ্যার দিকে বিক্ষুব্ধ জনতা থানা পয়েন্টে রাস্তা অবরোধ করেন।

জানা গেছে,সিলেট থেকে সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে চলাচলকারী ফাহাদ অ্যান্ড মাইশা পরিবহনের একটি চলন্ত বাসে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে ওই গাড়ির চালক ও হেলপাররা। এ সময় দিরাই পৌর এলাকার বাসিন্দা ওই কলেজছাত্রী সম্ভ্রম বাঁচাতে দিশেহারা হয়ে গাড়ি থেকে নিচে লাফিয়ে পড়ে গুরুতর আহত হন।

মেয়েটির চাচা বলেন,আমার ভাতিজি দিরাই সরকারি কলেজে ডিগ্রিতে অধ্যয়নরত। সিলেটের লামাকাজি এলাকায় তার বোনের বাড়িতে গিয়েছিল। তার বোনজামাই অজিত দাস তাকে (সিলেট-জ-১১-০৭২৩) সিরিয়ালের লোকাল বাসে তুলে দেয় দিরাইয়ে ফেরার জন্য। সে একাই ফিরছিল।

পথিমধ্যে গাড়ির যাত্রীরা একে একে নেমে গেলে গাড়িটি একপর্যায়ে ফাঁকা হয়ে যায়। লোকাল বাস হলেও নতুন যাত্রী উঠানো থেকে বিরত থাকে গাড়ির স্টাফরা। চালক হেলপার মিলে আমার ভাতিজিকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। উপায়ন্তর না পেয়ে সে সুজানগর এলাকায় গাড়ি থেকে লাফ দিয়ে নিচে পড়ে আহত হয়।