Thu. Feb 25th, 2021

সিসিকের অসাধ্য সাধনঃ বদলে গেলো কোর্ট পয়েন্ট-জিন্দাবাজার-চৌহাট্টা সড়ক

ডেইলি বিডি নিউজঃ সড়কের দুই পাশে ফুটপাত। নেই কোনো হকার। পথচারীরা হাঁটছেন স্বাচ্ছন্দ্যে। সড়কে নেই রিকশাসহ কোনো ধীর গতির যানবাহন। নেই কোনো যানজট। বিদ্যুৎ আর ইন্টারনেট ক্যাবল মাটির নিচে সরিয়ে নেওয়ায় নেই মাথার ওপর তারের কোনো জঞ্জালও।

এ চিত্র সিলেট নগরের কোর্ট পয়েন্ট-জিন্দাবাজার-চৌহাট্টা সড়কের। পুরো সড়কের দুই পাশের ফুটপাত আগে হকারদের দখলে ছিল; যে কারণে পথচারীদের হাঁটতে হতো সড়ক দিয়ে। আর যত্রতত্র পার্কিং এবং ধীরগতির যানবাহনের কারণে এ পথটুকু পাড়ি দিতে দীর্ঘ যানজটের কবলে পড়তে হতো যাত্রীদের।

এ বছরের ১ জানুয়ারি থেকে সেই চিত্র বদলে গেছে। পুরো এ সড়ক ফুটপাত হকারমুক্ত ঘোষণা করেছে সিটি করপোরেশন। এজন্য হকারদের পুনর্বাসন করা হয়েছে লালদীঘিরপার মাঠে। একই সঙ্গে এ সড়কে রিকশা, ভ্যান ও হাতাগাড়ি চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারিও করা হয়েছে ওইদিন থেকেই।

হকারমুক্ত করার পাশাপাশি সড়কের সৌন্দর্য বাড়াতেও কাজ করা হচ্ছে। এর অংশ হিসেবে সড়কের ডিভাইডারে বসেছে বিলেতের সড়কের আদলে কারুকাজ সম্বলিত রডের গ্রীল। আর মাটিতে লাগানো হয়েছে হলুদ রঙের গাঁদা ফুল। রাতের নিয়ন আলোতে এ সৌন্দর্যে মুগ্ধ হচ্ছেন পথচারীরা।

সিসিক সূত্র জানায়, সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, বুদ্বিজীবী স্মৃতিসৌধসহ সরকারি-বেসরকারি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা এবং প্রধান প্রধান বিপণিবিতান আর হোটেল-রেস্তোরাঁর অবস্থান নগরের কেন্দ্রস্থল জিন্দাবাজার এলাকায়। এ কারণে এই এলাকায় পর্যটকসহ জনসাধারণের ভিড় বেশি থাকে। ফলে এই এলাকার দিকে বাড়তি নজর রয়েছে সিসিকের।

এর অংশ হিসেবে কোর্ট পয়েন্ট-জিন্দাবাজার হয়ে চৌহাট্টা মোড় পর্যন্ত সড়কে দ্বিমুখী যান চলাচলের ব্যবস্থা করে সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এছাড়া ভূগর্ভস্থ বিদ্যুৎ লাইন প্রকল্পের মাধ্যমে ওই এলাকার বৈদ্যুতিক খুঁটি অপসারণ করে মাটির নিচ দিয়ে বিদ্যুৎ লাইন সরবরাহ করেছে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড।

এসব উন্নয়ন কার্যক্রম শেষে পুরো এলাকা আদর্শ এলাকায় রূপান্তর পরিকল্পনার অংশ হিসেবে সড়কে রিকশা, ভ্যান ও ঠেলাগাড়ি চলাচলে বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে। ১ জানুয়ারি থেকে এ নির্দেশনা বাস্তবায়নও হয়েছে। তবে এ নির্দেশনা বাস্তবায়নের শুরু থেকেই সিসিকের এমন সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে আসছেন রিকশা চালক-মালিক এবং স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। যদিও তাদের এমন দাবি মানতে নারাজ সংশ্লিষ্টরা।

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সম্প্রতি সাংবাদিকদের বলেন, জিন্দাবাজার হচ্ছে সিলেট মহানগরের সবচেয়ে ব্যস্ততম এলাকা। পর্যটকদের আনাগোনাও এ এলাকায় সবচেয়ে বেশি। তাই এই এলাকার সৌন্দর্যবর্ধনে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছি আমরা। এর অংশ হিসেবে সড়কের দুই পাশের ফুটপাত থেকে হকারদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এতে পথচারীরা নির্বিঘ্নে চলাচল করতে পারছেন। হকারমুক্ত হওয়া এ সড়কে যানজট নিয়ন্ত্রণ করতে রিকশা, ভ্যান ও ঠেলাগাড়ি চলাচল বন্ধ করা হয়েছে।

সড়কটি হকার ও যানজট মুক্ত রাখার এই উদ্যোগে নগরবাসীর সার্বিক সহযোগিতাও প্রত্যাশা করেছেন মেয়র আরিফ।