Main Menu

নুরুল ইসলাম নাহিদের মধ্যাহ্ন ভোজ নিয়ে বিভ্রান্তি ও ভ্রান্ত রাজনীতি

ফরহাদ মোঃরুবেনঃ গত মঙ্গলবারে গোলাপগঞ্জের বাঘা ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামে একটি উন্নয়ন কর্মসূচিতে যোগ দেন সিলেট ৬ আসনের সংসদ সদস্য নুরুল ইসলাম নাহিদ এম পি। অতপর মধ্যাহ্ন ভোজের জন্য যান দুবাই যুবলীগের সহ সভাপতি আব্দুর রবের বাড়িতে।সেখানে অনেক দলিয় নেতা কর্মীকে সাথে নিয়ে মধ্যাহ্ন ভোজ করেন।
এই পর্যন্ত ঠিক আছে কিন্তু সমস্যা হয়ে গেল টেবিল থেকে দূরে দাঁড়ানো একটি অপরিচিত ছেলকে নিয়ে।

এই একটা ছবি দিয়ে আপনারা শুরু করে দিলেন অপরাজনীতি, ভাই খুশি করা,প্রধানমন্ত্রী সব খবর রাখেন বলে হুমকি দেওয়া।উসকে দিলেন অন লাইন পত্রিকা। সবাই হৈচৈ শুরু করে দিলেন।যে যার মত লোকজন নিয়ে ঝাপিয়ে পড়লেন।দেশ বিদেশে পৌছে দিলেন। যেই সরওয়ার ভাইয়ের একটা ছবি আসলো চুপসে গেলেন।ততক্ষণে যা হওয়ার হয়ে গেছে।প্রশ্ন হচ্ছে এই রাজনীতি করে কি জিতলেন? সবাই এক হয়ে একটি মানুষকে ডুবাতে গিয়ে অপরিচিত একটি ছেলেকে পরিচিত করলেন।

সরওয়ার ভাইের সাথে জনৈক এক বি এন পি নেতার ছবি আসলো।ঐ নেতার সামনে একটি ভেনার।ভেনারে লেখা খুনি হাসিনা,দূর্নীতিবাজ হাসিনা।তার হাতে একটা হেন্ড মাইক।যে শেখ হাসিনাকে খুনি ও দূর্নীতিবাজ বলে সে সরওয়ার ভাইয়ের কাছে যায় কি ভাবে? এই বিষয়টির ব্যাখ্য চাই। আর যারা কথায়,কথায় নেত্রীকে দেখান তাদেরকে বলছি, এই উপজেলায় কিছু লোক আছে যারা সাধা মাটা চেহারায় চলাফেরা করে,তারাও নেত্রীর কাছে পৌচাইতে পারে।তারা দেখছে আপনারা কি করছেন।

একজন এম পি কিংবা মন্ত্রী বা কোন নেতা যখন কোন প্রোগ্রামে এটেন্ড করেন।তার পূর্বে কেউ প্রোগ্রাম ঠিক করে দেন,কেউ বাস্তবায়ন করেন।তখন সাংগঠনিক ঐ ইউনিটের উপর সবকিছু নির্ভর করে।সেখানে এম পি,মন্ত্রী, নেতার কিছু করার থাকে না।

মনে রাখবেন, প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন তারা প্রটোকলের দায়িত্ব পালন করেন।দায়িত্ব রত পুলিশ কারো জীবনের উপর হুমকি কিংবা ঘটনাস্থলে কোন গন্ডগোল হলে তার প্রতিকার করবে।কোন ক্রমেই এম পি,মন্ত্রীর রাজনৈতিক নিরাপত্তা দিতে পারবে না।যা সুনিশ্চিত করতে হয় সংশ্লিষ্ট সংগঠনের নেতা কর্মীকে।

নুরুল ইসলাম নাহিদকে সিলেট ৬ আসনের নেতা,কর্মী থেকে সাধারণ জনগন যে ভালোবাসা দিয়েছে তার ঋণ কোনোদিন শোধ করতে পারবেন না।তিনি এমন নেতা যিনি এমপি, মন্ত্রী হন তার কর্মীদের সহায়তায়। তিনি দুই উপজেলায় অনেক উন্নয়ন করেছেন।যা থাকে অবিস্মরণীয় করে রাখবে।এখনও অনেক কিছু বাকি যা থাকে করার সুযোগ দিতে হবে।একটা কথা মনে রাখবেন তিনি যে প্রোফাইলের লোক এই প্রোফাইলওয়ালা লোক বাংলাদেশে হাতে গোনা।নুরুল ইসলাম নাহিদ ইউনেস্কোর ভাইস প্রেসিডেন্ট, E nine ফোরামের সভাপতি বর্তমানে টোটাল এশিয়া শিক্ষার প্রতিনিধিত্ব করছেন। এই মানুষটাকে নিয়ে কোথাও বসলে চোখ,কান খোলা রাখার অনুরোধ করছি।

আমাদের সংগঠনের নেতাদেরকে মনে করিয়ে দিচ্ছি নুরুল ইসলাম নাহিদের পর এই আসন হবে বিএনপির তখন আফসোস করা ছাড়া কিছু করার থাকবে না।তাই ভবিষ্যৎ রাজনীতিকে নষ্ট না করে বির্নিমান করুন।

উনারও ভুল ত্রুটি থাকতে পারে।আপনারা ফোনে কিংবা সরাসরি সাক্ষাৎ করে বলেন কোথায় সমস্যা। আর কিভাবে তার সমাধান করতে চান।বিভ্রান্তি কর পরিস্থিতি থেকে নেতারা,রাজনীতি ও আমাদের মতো কর্মীরা হেফাজতে থাকুক। জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু।

ফরহাদ মোঃরুবেন
সহ সভাপতি
বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন, সিলেট জেলা শাখা।






Related News

Comments are Closed