Main Menu

সিলেটে বন্ধ থাকা ব্যাংকগুলো খোলা রাখতে জেলা প্রশাসনের নির্দেশ

ডেইলি বিডি নিউজঃ করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সিলেটে লকডাউনের ফলে বন্ধ হয়ে যাওয়া ব্যাংকগুলোকে খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছেন সিলেটের জেলা প্রশাসন। রোববার এক বিজ্ঞপ্তিতে ব্যাংকগুলো চালু রেখে সিলেটে নিজেদের কার্যক্রম চালাতে পারবে বলে ঘোষণা দেন।

আকস্মিক লকডাউন ঘোষণা আসায় গ্রাহকদেরও তা জানানো যায়নি। ফলে টাকা তোলার জন্য অনেকে ব্যাংকে এসে বন্ধ পেয়ে পত্রিকা কর্তৃপক্ষের সাথে যোগোযোগ করে জানতে চাইছেন, ব্যাংক কেন বন্ধ, কবে খুলবে? এ ব্যাপারে একাধিক ব্যাংক ম্যানেজারের সাথে যোগাযোগ করলে তাঁরা জানান, শুধু লকডাউনে ব্যাংক বন্ধ থাকবে, এর বেশী তারাও কিছু জানেন না। তাঁরাও কিছু গ্রাহকের ফোন পাচ্ছেন জানিয়ে বলেন, এমন পরিস্হতির অভিজ্ঞতা না থাকায় আমরা নিজেরাও বিব্রত। ব্যাংক বন্ধ থাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি ও দুর্ভোগ দেখা দেওয়ায় সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম এ নিদের্শ দিয়েছেন।

সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আসলাম উদ্দিন জানান, জরুরি পরিষেবা লকডাউনের আওতা বহির্ভূত। এ হিসেবে সকল তফসিলি ব্যাংক লকডাউনের মধ্যে খোলা রাখা যাবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্ধারিত সময়ের মধ্যে (সকাল ১০টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা) ব্যাংকের কার্যক্রম চালানো যাবে।

খুলা থাকা ব্যাংকগুলোর মধ্যে হলো, বাংলাদেশে তফসিলি ব্যাংকের মধ্যে রয়েছে সোনালী ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, বেসিক ব্যাংক লিমিটেড, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড, আইএফআইসি ব্যাংক লিমিটেড, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড, ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড, এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড, এনআরবি ব্যাংক লিমিটেড, এবি ব্যাংক লিমিটেড,

এনসিসি ব্যাংক লিমিটেড, ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড, ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড, ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড, ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড, পূবালী ব্যাংক লিমিটেড, প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড, প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেড, ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড, ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড, মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক, সিটি ব্যাংক লিমিটেড, উত্তরা ব্যাংক লিমিটেড প্রভৃতি।






Related News

Comments are Closed