Main Menu

পবিত্র রমজানে খাদ্যসামগ্রী উপহার দিলেন দানশীল ব্যাক্তি ইমতিয়াজ কামরান তালুকদার

ফারহানা বেগম হেনাঃ মানব সেবাই পরম ধর্ম,পৃথিবীর প্রতিটি ধর্মেই মানব সেবার কথা বলা আছে। অনেকের মতে মানব সেবার মাঝেই সৃষ্টিকর্তার আনুকূল্য পাওয়া যায়। যার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে সমাজসেবা করা।করোনা ভাইরাস নিয়ে সারা বিশ্ব যখন আতঙ্কিত বাংলাদেশ সরকার সারাদেশ লকডাউন ঘোষনা করে সবাইকে ঘরে থাকার নির্দেশ দেওয়ায় দেশের শ্রমজীবী মেহনতী মানুষ ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী অসহায় মানুষের কাছ থেকে ফোন অথবা ফেইসবুকে মেসেঞ্জারে মেসেজ পেলেই বিপদগ্রস্ত ব্যক্তির পরিচয় গোপন রেখে বিপদগ্রস্ত মানুষ ও অসহায়দের জন্য খাদ্য সামগ্রী উপহার নিয়ে বাসায় হাজির হন তিনি।

করোনা সংকট মোকাবেলায় সিলেট নগরীর অসহায় মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত, হতদরিদ্র ও প্রতিবন্ধী মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন তরুণ উদ্যোক্তা ও নাট্যকার এবং অভিনেতা, সিলেট ফ্রিডম ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও প্রধান পৃষ্ঠপোষক দানবীর ইমতিয়াজ কামরান তালুকদার।এছাড়াও এর আগে তিনি সিলেট নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে সমাজের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে বিনামূল্যে মাস্ক-স্যানিটাইজার ও সাবান, খাদ্য সামগ্রী বিতরণ,নগদ অর্থ প্রদান,নিজ হাতে রান্না করে খাবার বিতরণ,সিলেটের সংস্কৃতি কমীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন,লিফলেট বিতরণ সহ নানা সমাজসেবা মূলক কার্যকম করেছেন।তিনি ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ সিলেট এম সি কলেজে থেকে পলিটিক্যাল সায়েন্সে পোস্ট গ্রাজুয়েশন সূ-সম্পূণ করেছেন। এছাড়াও তিনি মঞ্চ অভিনয় আর টিভি নাটক সঙ্গে জড়িয়ে আছেন পাশাপাশি তিনি তরুণ উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ী।তার ব্যক্তিগত উদ্যোগে প্রতিদিন নগরীর বিভিন্ন প্রান্তের দরিদ্র জনগণ পাচ্ছেন খাদ্য ও ত্রাণ সামগ্রী।

তিনি একটি টিম গঠন করেন,কামরান তালুকদার টিম বিনামূল্যে খাদ্য সামগ্রী ঘরে পৌঁছে দেয়।নগরীর বিভিন্ন এলাকায় হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীর মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করছেন। এ পর্যন্ত প্রায় ৬৫০ পরিবারের মাঝে খাদ্য ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন।বিশ্ব এক মহা সংকটময় মুহূর্ত পার করছে। এ অবস্থায় বিপাকে পড়েছেন দিনমজুর ও হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীর মানুষ। আমি আমার ক্ষুদ্র প্রচেষ্টায় সিলেট নগরীর কিছু মানুষের মুখে হাসি ফোটাবার চেষ্টা করেছি।করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে দেশে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।বন্ধ রয়েছে স্কুল-কলেজ, অফিস-আদালত, কারখানা, শপিংমলসহ সকল ধরনের যানবাহন। এ অবস্থায় দেশের সবশ্রেণির মানুষের সমস্যা হলেও সব থেকে বেশি বিপাকে পড়েছে মধ্যবিত্তরা। নিম্নবিত্তরা সরকার ও অনেক ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান থেকে সহায়তা পেলেও মধ্যবিত্তরা তা থেকে বঞ্চিত। এই শ্রেণির মানুষ লোকলজ্জার ভয়ে কাউকে কিছু বলতেও পারছেন না।এসময় উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ও সমাজসেবক এম.এ ওয়াহিদ চৌধুরী,দেশ থিয়েটার এর প্রতিষ্টিতা সভাপতি ও অভিনেতা মো কামাল আহমেদ দূর্জয়,এফ কে ফয়ছল,সুৃমন,শফিক,রকিব আলী,বাবুল মিয়া প্রমুখ।






Related News

Comments are Closed