Main Menu

পুলিশের প্রশংসা এখন মানুষের মুখে মুখে,পাল্টে গেছে পুলিশ সম্পর্কে ধারণা”

বি এম মনির হোসেনঃ পুলিশের প্রশংসনীয় ভুমিকায় জাতি গর্বিত,করোনা ক্রান্তিতে বাংলাদেশ পুলিশের সদস্যরা করোনা সংক্রমণ থেকে মানুষকে সচেতন করতে নিরলশ কাজ করছেন। জাতির এই ক্রান্তিলগ্নে পুলিশের ভুমিকা শ্রেষ্ঠ মানব সেবার নজির হয়ে থাকলো। সচক্ষে দেখছি জীবনের মায়া ত্যাগ করে পুলিশ সদস্যরা মানুষকে সচেতন করছেন। কে জানে এভাবে সচেতন করতে গিয়ে নিজেই হয়ত সংক্রমিত হচ্ছে। কিন্তু নিজের বা পরিবারের নিরাপত্তার কথা ভেবে কোন পুলিশ সদস্যই নিজের কর্তব্য থেকে বিরত থাকার কথা শুনিনি। জাতি আপনাদের নিয়ে গর্বিত। এই মহান স্বাধীনতার মাসে জাতির পক্ষ থেকে আপনাদের সংগ্রামী অভিবাদন। সেলুট।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে সারাবিশ্ব টালমাটাল । উন্নত দেশে সুবিধা হচ্ছে সরকার ঘোষণার সাথে সাথে জনসাধারণ তা মেনে চলে। বাংলাদেশে তা সম্ভব না। মানুষ শুনেও না। ২৬ মার্চ থেকে ছুটি ঘোষণার সাথে সাথে মানুষ পিপড়ার মত গ্রামে ছুটলো। একবার ভাবলোও না নিজে সংক্রমিত হয়ে পরিবারের সদস্যদের জন্য মৃত্যুর ঝুকি বহন করছেন। সরকার বাধ্য হয়ে নিরাপত্তা বাহিনি মোতায়েন করে। বিশেষভাবে পুলিশ সদস্যরা ২৪ ঘণ্টা মাঠে ঘাটে কাজ করছেন। প্রিয় পাঠক একবার ভাবুন আপনাদের সচেতন করতে পুলিশ সদস্যদের স্বেচ্ছায় করোনা সাগরে ঝাপ দিতে হচ্ছে। মানবিক পুলিশের আচরনে পুলিশের প্রশংসা এখন মানুষের মুখে মুখে।

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে চলছে সাধারণ ছুটি কিন্তু পুলিশ সদস্যদের কোন ছুটি নেই। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে দিন রাত কাজ করার পাশাপাশি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাসহ সকল শ্রেনীর মানুষের জন্য সব রকমের কাজ করছেন পুলিশ সদস্যরা। সাধারণ মানুষের যাতে কষ্ট না হয় সে জন্য ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন পুলিশ সদস্যরা।

এইতো কয়েকদিন আগের ঘটনা। করোনার কারণে সরকারের নির্দেশে ঘরে বন্দি হয়ে পরেন প্রতিবন্ধী গৌরী হালদারের দিনমজুর স্বামী মিলন হালদার। ফলে চার সদস্যর পরিবারে তাদের চরম খাদ্য সংকট চলতে থাকে। প্রতিদিন ত্রাণের আশায় সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত হাতের ওপর ভর করে চলা শারিরিক প্রতিবন্ধী গৌরী হালদার বাড়ির সামনের রাস্তায় বসে থাকেন। কিন্তু তার ভাগ্যে জোটেনি কোন ত্রাণের খাদ্য সামগ্রী। বিষয়টি বরিশাল জেলার আগৈলঝাড়া থানার চৌকস অফিসার ইনচার্জ মোঃ আফজাল হোসেন জানতে পেরে তাৎক্ষনিক প্রতিবন্ধী গৌরী হালদারের বাড়িতে পায়ে হেঁটে বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী নিয়ে হাজির হন উপজেলার বাকাল ইউনিয়নের ফুল্লশ্রী গ্রামের গৌরী হালদারের বাড়িতে গিয়ে ওসি আফজাল যখন তার (গৌরী) হাতে চাল, ডাল, পিয়াজ, আলুসহ বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী তুলে দিয়েছেন তখন হাউমাই করে কেঁদে ফেলেন প্রতিবন্ধী গৌরী। ওসি আফজাল হোসেন জানান, করোনায় জেলা পুলিশের বিশেষ উদ্যোগে আগৈলঝাড়ার শতাধিক পরিবারের মাঝে বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়াও তিনি তার বেতনের টাকায় বাকাল, জবসেন, দাসেরহাট,পূর্ব সুজনকাঠী,বাশাইল,ভালুকশি, গ্রামের হতদরিদ্র ভ্যান ও রিকসা চালক, চায়ের দোকানদারসহ শতাধিক দিনমজুর পরিবারের মাঝে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেছেন।গত ১০ এপ্রিল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার গুজবে আগৈলঝাড়া উপজেলার পয়সার হাট এলাকার রাস্তার পাশে পরেছিলো মানসিক ভারসাম্যহীন ৬০ বছরের অজ্ঞাত এক ব্যক্তির মরদেহ। করোনা আতঙ্কের গুজবে অজ্ঞাত পরিচয়ধারী ব্যক্তির মরদেহের কাছে যখন কেউ এগিয়ে আসেননি তখন থানা থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরত্বে ঘটনাস্থলে ছুটে যান আগৈলঝাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আফজাল হোসেন।

ঘটনাস্থলে হাজির হয়ে আসে পাসে খোঁজ খবর নিয়ে মৃত দেহের কোন অভিভাবক কাউকে পাওয়া যায়নি পরে মৃত দেহটি আগৈলঝাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আফজাল হোসেন উদ্ধার করিয়া বরিশাল মর্গে প্রেরন করিয়াছেন। ১৪ এপ্রিল মঙ্গলবার পুলিশ হেডকোয়ার্টারের নির্দেশ অনুযায়ী ব‌রিশাল জেলার আগৈলঝাড়া থানা এলাকার বি‌ভিন্ন কাঁচা বাজার ও মাছ বাজার মাঠে নেয়া, একমুখী চলাচ‌লে উৎসা‌হিত করা এবং সা‌রিবদ্ধ রাখার কার্যক্রম অব্যাহত র‌েখেছেন। করোনা মহামারীতে জনসাধারণের সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করতে পুলিশের এই উদ্যোগ।আসন্ন রমজানকে সামনে রেখে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের মূল্য স্থিতিশীল রাখা, সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করা ও অপ্রয়োজনে বাইরে আসা লোকজনকে নিরুৎসাহিত করতে পুলিশ সুপার মোঃ সাইফুল ইসলাম বিপিএম (বার), পিপিএমের দিক নির্দেশনায় ২৪ এপ্রিল শুক্রবার ছুটির দিনেও বরিশালের আগৈলঝাড়ায় বিভিন্ন বাজার এবং চেকপোস্টসমূহে আগৈলঝাড়া পুলিশ সদস্যদের সক্রিয় ভূমিকা ছিলো চোখে পড়ার মতো।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় বেলা ২ টায় আগৈলঝাড়াবাজার ও বেলা ৩ টায় গৈলা বাজারে আগৈলঝাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আফজাল হোসেনের নেতৃত্বে থানার পুলিশ সদস্যরা সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করতে কাজ করছেন, দোকানে পণ্যের মূল্য তালিকা টানিয়ে রাখা এবং বাজারে যেন দ্রব্যমূল্য নিয়ে কোন সিন্ডিকেট না হয় সেজন্য সতর্ক থাকতে ব্যবসায়ীদের আহ্বান জানাচ্ছেন।খোঁজ নিয়ে জানা যায় জেলার মুলাদি, হিজলা, কাজীরহাটের প্রত্যন্ত অঞ্চলে কর্মহীন মানুষদের মাঝে সাহায্য এবং লোকজনকে ঘরে থাকার জন্য নিরলস কাজ করে যাচ্ছে অসহায় কর্মহীন ও দরিদ্র মানুষের মাঝে ত্রাণ কার্যক্রমসহ বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে মোঃ নাঈমুল হক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বরিশাল।

রেঞ্জ ডিআইজি মোঃ শফিকুল ইসলাম,পুলিশ সুপার মোঃ সাইফুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ নাঈমুল হক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(গৌরনদী সারকেল) আঃ রব হাওলাদার প্রায় সময় সশরীরে উপস্থিত হয়ে কার্যক্রম পরিদর্শন করা ছাড়াও সার্বক্ষণিক তদারকি ও প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছেন।

অপরদিকে প্রাণঘাতী মহামারী করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে পটুয়াখালী জেলার রাঙ্গাবালী থানার অফিসার ইনচার্জ আলীআহম্মেধ, রাঙ্গাবালী উপ‌জেলার বি‌ভিন্ন স্থা‌নে বাড়ি বাড়ি গিয়ে দিনমজুর, গ‌রিব ও দুস্থ‌্যদের মা‌ঝে খাদ‌্য সামগ্রী,মাস্ক সহ প্রয়োজনীয় সামগ্রী বিতরন ক‌রেন।






Related News

Comments are Closed