Main Menu

সমন্বয়হীনতার কারণে ত্রাণ থাকা সত্ত্বেও বনঞ্চিত হচ্ছেন অনেকেই

সুষমা সুলতানা রুহীঃ পর্যাপ্ত ত্রাণ থাকা সত্তেও ত্রাণ বন্টনে সমন্বয়হীনতার কারণে বঞ্চিত হচ্ছেন অনেক মানুষ।

ডাটাবেজ না থাকায় সরকারী ত্রাণ এবং ব্যক্তিগত ত্রাণ বণ্টনে সমন্বয় না হওয়ার কারনে এক মানুষ বারবার ত্রান পাচ্ছেন । দারিদ্র্যসীমার নিচে যারা তারা নিম্নে ৩০ কেজি থেকে শুরু করে ১২০ কেজি পর্যন্ত ত্রান পেয়েছেন ।

মনে করেন “ক” আমাকে ত্রাণ দিয়েছেন আবার “খ” এসে আমাকে ত্রান দিয়েছেন “গ” এসেও আমাকে ত্রাণ দিয়েছেন । ক, খ,গ এর সমন্বয় না থাকার কারণে আমি বারবার ত্রাণ পাচ্ছি ।

যিনি ত্রান দিচ্ছেন তিনি জানেন না আমি যে পূর্বে ত্রাণ পেয়েছি। আমিও স্বীকার করছি না যে আমি ত্রাণ পেয়েছি কারণ আমি গরিব বাংলাদেশী। আমাদের নৈতিক চরিত্রের বৈশিষ্ট্য এটি।

আমি কিন্তু গরিবের লিস্টে আছি, যারা লিষ্ট করবেন সেখানে আমার নাম যাবে এটা স্বাভাবিক।

কিন্তু নিম্ন মধ্যবিত্ত বা মধ্যবিত্ত- যারা বিপদে আছেন তাদের নাম গরিবের লিস্টে নেই বা তারা কারো কাছে হাত পাততেও পারেন না যার কারণে তারা অনেক কষ্টে আছেন । এ লিস্ট থেকে তারা কিন্তু বঞ্চিত হচ্ছেন ।
গরীবদের পাশাপাশি নিম্ন মধ্যবিত্ত, মধ্যবিত্ত মানুষের দিকে নজর রাখা আমাদের প্রয়োজন।

সমন্বয়হীনতার কারনে দারিদ্র্যসীমার নিচে যারা তাদের ঘরে প্রচুর ত্রাণ মজুদ হয়ে গেছে। সেখান থেকে তারা বিক্রিও করছেন । নগদ টাকা তাদের হাতে এসেছে । সরকার কর্তৃক যে ২৫০০ টাকা দেওয়া হচ্ছে সেটাও যোগ হয়েছে । তাদের মনে আর আনন্দ ধরে না । তারা সিলেটের হাসান মার্কেটে গিয়ে ঈদের বাজার করছেন ।

হাসান মার্কেট এর আজকের অবস্থা দেখে বুঝা গেল- যারা বাজার করছেন, বেশিরভাগই দারিদ্র্যসীমার নিচে যারা অবস্থান করছেন -তারা।

করোণা নিয়ে তাদের মনে নেই কোন উৎকণ্ঠা। তাদের মনে নেই কোন ভয় ভীতি। অনেকে আবার করোনা চিনেনও না কারণ তাদের হাতে টাকা আসায় তারা সবকিছু ভুলে গিয়েছেন ।

যারা করোনাকে ভালোভাবে চিনেন, জানেন তারা নিম্নমধ্যবিত্ত থেকে শুরু করে উচ্চবিত্ত মানুষ । জীবনের ঝুকি নিয়ে তারা ঈদের বাজার করছেন না বা বাজারে যাচ্ছেন না, করোনা ছড়াচ্ছেন না। তারা বুঝে ফেলেছেন করোনা নিয়ে ছেলেখেলা করা যাবে না। ঈদের ফুর্তি থেকে জীবন যে অনেক বড় সেটা তারা বুঝতে পেরেছেন। আরো বুঝতে পেরেছেন করোনা কে দাওয়াত না দিলে সে কারো বাড়ি যায় না। সে দাওয়াত হলো লোকালয়ে গিয়ে তাকে সাথে করে নিয়ে আসা ।

আমি সবার কাছে একটা অনুরোধ করবো যারা ত্রাণ দেন, যে এলাকায় ত্রাণ দিবেন সে এলাকাতে খবর নিয়ে জানবেন – কেউ যদি ত্রাণ দিয়ে থাকেন তার কাছে যদি লিস্ট থাকে সেই লিষ্টের সাথে সমন্বয় করে! রটেশন অনুযায়ী ত্রাণ বন্টন করবেন যাহাতে যারা পাননী তারা যেন ত্রাণ পান । সেদিকে নজর রাখার জন্য বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

লেখকঃ সুষমা সুলতানা রুহী –






Related News

Comments are Closed