Main Menu

কানাইঘাট সুরইঘাট-বড়বন্দ সড়কের বেহাল দশা, জনদুর্ভোগ চরমে

কানাইঘাট প্রতিনিধি:: কানাইঘাট সুরইঘাট বাজার থেকে বড়বন্দ এবং বড়চতুল ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত প্রায় ৯ কিলোমিটার সড়ক ভেঙে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এই সড়ক দিয়ে পাথরবাহী ভারি ট্রাক চলাচলের কারণে সড়কের বিভিন্ন অংশ বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া সড়কের বেশির ভাগ এলাকায় পিচ উঠে গিয়েছে। এতে জনসাধারণের যাতায়াতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

এলাকার লোকজন সুরইঘাট বাজার হইতে বড়চতুল ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত এলজিইডি’র গ্রামীণ সড়ক দিয়ে সব ধরনের ভারি যানবাহন ও পাথরবাহী ট্রাক বন্ধের জন্য স্থানীয় প্রশাসনের কাছে বার বার দাবি জানিয়ে আসলেও এ ব্যাপারে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, লোভাছড়া পাথর কোয়ারি থেকে আমরি খাল দিয়ে গত ১ মাস ধরে হাজার হাজার ঘনফুট পাথর সুরইঘাট সড়কের বোবার হাওর নামক স্থানে অবৈধভাবে সরকারি জায়গার উপর মজুদ করা হচ্ছে। আর সেখান থেকে রাতদিন ট্রাক, ট্যাক্টর দিয়ে পাথর বহন করে সুরইঘাট বড়বন্দ সড়ক দিয়ে সিলেটসহ বিভিন্ন জায়গায় পরিবহন করা হচ্ছে। এতে সড়কের বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এভাবে আরও কিছুদিন পাথরবাহী ট্রাক এ সড়ক দিয়ে যাতায়াত করলে ৯ কিলোমিটার সড়ক যান চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়বে বলে জানিয়েছেন লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউনিয়ন ও বড়চতুল ইউনিয়নের বাসিন্দারা।

তারা বলছেন, দীর্ঘ কয়েক বছর পর গত বছর বড়বন্দ সড়কের সংস্কার কাজ এলজিইডি’র অর্থায়নে করা হয়। কিন্তু শুকনো ও ভরা মৌসুমে লোভাছড়া পাথর কোয়ারি থেকে ভারি ট্রাকসহ ট্র্যাক্টর দিয়ে গ্রামীণ এ সড়ক দিয়ে পাথর পরিবহনের কারণে এক বছরের মধ্যে রাস্তার বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এ সড়ক দিয়ে পাথরবাহী ট্রাক চলাচল বন্ধ করার জন্য বিহীত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সিলেটের ঊর্ধ্বতন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।

লক্ষীপ্রসাদ ইউনিয়নের অনেক জনপ্রতিনিধি বলছেন, সড়ক দিয়ে পাথরবাহী ও ভারি যানবাহন চলাচল বন্ধের জন্য তারা বার বার দাবি জানিয়ে আসলেও এ ব্যাপারে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।

বড়চতুল ইউপি চেয়ারম্যান মাওলানা আবুল হোসাইন জানিয়েছেন, বড়চতুল ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বড়বন্দ পর্যন্ত তার ইউনিয়নের প্রায় আড়াই কিলোমিটার পাকা সড়ক রয়েছে। পাথরবাহী ট্রাক চলাচলের কারণে এ আড়াই কিলোমিটার সড়কের বেহাল অবস্থা বিরাজ করছে। এ সড়ক দিয়ে পাথরবাহী ট্রাক চলাচল বন্ধের জন্য দাবি জানিয়েছেন তিনি।






Related News

Comments are Closed