Main Menu

সন্ত্রাসীদের জীবনের পরিণতি কঠোর : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ডেইলি বিডি নিউজঃ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন এমপি বলেছেন, মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে না বলাটা দেশের জন্য, আমার জন্য, সকলের জন্য মঙ্গল। কারণ যে একবার সন্ত্রাসী হয় তার নিজের জীবনের পরিণতি বড় কঠোর। সে নিজের শত্রু, পরিবারের শত্রু, সমাজের শত্রু, দেশের শত্রু। এমনি তার মৃত্যুর সময় তার কেউ পাশে থাকে না। সুতরাং আপনারা যারা তরুণ, আপনারা যারা আছেন অবশ্যই আপনাদের সন্ত্রাসের বাইরে থাকতে হবে।

শুক্রবার সকালে মুজিব জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে র‍্যাব-৯ সিলেটের আয়োজনে অনুষ্ঠিত মাদক, সন্ত্রাস ও জংগীবাদবিরোধী ‘হাফম্যারাথন’ শেষের পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

এর আগে জনসচেতনতামূলক এ আয়োজনে অংশ নেয় বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার সহস্রাধিক এথলেট। ছিল, স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ের শিল্পীদের অংশগ্রহনে সাংস্কৃতিক আয়োজন।

এক মঞ্চে দাঁড়িয়ে ‘মাদক ও সন্ত্রাস’ রুখে দেওয়ার শপথ নিলেন সহস্রাধিক এথলেট, দেশের জনপ্রিয় চলচ্চিত্র তারকা, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তা ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ৬ টায় শীতের ঘণ কুয়াশা ভেদ করে সিলেটের ক্বীন ব্রিজের নিচে জমা হয় সহস্রাধিক এথলেট। কেউ আসেন পূর্বের অভিজ্ঞতা থেকে, আবার কেউ আসেন বিশাল এই মহাযজ্ঞের সাক্ষি হতে কিংবা নিজেকে ঝালিয়ে নিতে।

২১ দশমিক ১ কিলোমিটার ও ১০ কিলোমিটার ক্যাটাগরির হাফ ম্যারাথন সিলেটের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে লাক্কাতুরা এসে শেষ হয়। এ সময় এথলেটরা অংশগ্রহণের উচ্ছ্বাস প্রকাশের পাশাপাশি সিলেটে এমন আয়োজন নিয়মিত করার আহবান জানান।

আলোচনা পর্বে র‍্যাবের ডিজি সফল এ আয়োজনের জন্য সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে জংগী ও মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

আর মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে র‍্যাবের এ আয়োজনকে সাধুবাদ জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তুলে ধরেন মাদক নিয়ে পারিপার্শ্বিক কয়েকটি অভিজ্ঞতার কথাও।

অনুষ্ঠানে মাদকের বিরুদ্ধে সচেতনতামূলক বক্তব্য রাখেন বাউল কালা মিয়া, অভিনয়শিল্পী অমরসানি, মৌসুমি, রিয়াজ, মাহিয়া মাহি ও সিয়ামসহ অন্যরা।






Related News

Comments are Closed