Main Menu

সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটিতে বিএনপি নেতা!

ডেইলি বিডি নিউজঃ সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির প্রথম সভায় ‘বোমা ফাটিয়েছেন’ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজাদুর রহমান আজাদ। বক্তব্য দিতে গিয়ে জানালেন নবগঠিত কমিটির মধ্যে রয়েছেন বিএনপির এক নেতা।

আওয়ামী লীগে যোগদান না করেই সরাসরি বিএনপি থেকে ওই নেতা স্থান করে নিয়েছেন আওয়ামী লীগের কমিটিতে। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের এমন বক্তব্যের পর সভাস্থল জুড়ে শুরু হয় কানাঘুষা। দলের ত্যাগী অনেক নেতার যেখানে কমিটিতে ঠাঁই হয়নি, সেখানে বিএনপির রাজনীতি করে একজন কিভাবে আওয়ামী লীগের কমিটিতে জায়গা করে নেন- এনিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেন অনেকে। এমন পরিস্থিতিতে অভিযোগের ব্যাপারে খোঁজ নেয়ার আশ^াস দেন মহানগর সভাপতি মাসুক উদ্দিন আহমদ। এ ব্যাপারে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজাদকে তথ্য প্রমাণ দিয়ে সহযোগিতারও আহ্বান জানান তিনি।

সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার রাতে মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির প্রথম সভায় বক্তৃতা করেন সংগঠনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ। বক্তৃতার শুরুতে তিনি বলেন, ‘৭৫ সদস্যের কমিটির ৭৪ জনকে আমি শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। কিন্তু একজনকে শুভেচ্ছা জানাতে পারছি না। কারণ আমার জানামতে, তিনি দু:সময়ে আওয়ামী লীগ ছেড়ে বিএনপিতে যোগদান করেছিলেন। কিন্তু এরপর আর আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে ফিরে আসেননি। তাই এখনো তিনি বিএনপি নেতা, যে কারণে তাকে শুভেচ্ছা জানানো সম্ভব নয়।’

কার্যনির্বাহী কমিটির ৮ নম্বর সদস্য হিসেবে রয়েছে মো. আবদুল আজিম জুনেলের নাম। তাকে উদ্দেশ্য করে আজাদুর রহমান আজাদের দেয়া এই বক্তব্যের পর সভাস্থল জুড়ে শুরু হয় কানাঘুষা আর বিস্ময়। এরপর সভাপতি তার বক্তব্যে এ ব্যাপারে খোঁজ নেয়ার আশ^াস দেন। তথ্য প্রমাণ দিয়ে সহযোগিতা করার জন্য যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজাদের প্রতিও আহ্বান জানান তিনি।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজাদুর রহমান আজাদ জানান, ২০০৩ সালে যখন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের হামলা-মামলায় আওয়ামী লীগ নেতারা জর্জরিত, তখন শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহমুদ হোসেন মঞ্জুর সাথে বিএনপিতে যোগ দেন আবদুল আজিম জুনেল। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পরও তিনি এই সংগঠনে ফেরেননি। পুণরায় আওয়ামী লীগে যোগদানেরও কোন রেকর্ড নেই। তাই আওয়ামী লীগের কমিটিতে স্থান পেলেও মুজিব আদর্শের সৈনিক হিসেবে তাকে শুভেচ্ছা জানানো সম্ভব হয়নি।

এ প্রসঙ্গে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন বলেন, আবদুল আজিম জুনেলের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ ওঠেছে তা কতটুকু সত্য জানিনা। বিএনপিতে যোগদানকারী মাহমুদ হোসেন মঞ্জুর সাথে জুনেলের ভাল সম্পর্ক ছিল। কিন্তু তিনি বিএনপিতে যোগদান করেছিলেন এমন তথ্য জানা নেই।

অধ্যাপক জাকির হোসেন জানান, সভায় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজাদ এমন অভিযোগ তোলার পর এ ব্যাপারে তথ্য প্রমাণ থাকলে তা দিয়ে সহযোগিতা করতে বলেছেন সভাপতি। প্রমাণ ছাড়া অভিযোগ সত্য তা বলা যাবে না।

এ ব্যাপারে আবদুল আজিম জুনেল বলেন, ওয়ার্ড পর্যায় থেকে রাজনীতি করে তিনি শহর আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক হন। পরে মহানগর আওয়ামী লীগের প্রথম কমিটিতে তাকে সদস্য করা হয়। কিন্তু ২য় কমিটিতে তাকে বাদ দেয়ায় তিনি রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েন। তবে স্থানীয় ও জাতীয় নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছেন। ভুল তথ্যের ভিত্তিতে তার দিকে এমন অভিযোগের তীর ছোঁড়া হয়েছে। তিনি শহীদ পরিবারের সন্তান, তিনি কখনো বিএনপিতে যোগ দেননি।






Related News

Comments are Closed