Main Menu

যুক্তরাস্ট্রে অপকীর্তি ফাঁস করার পর নাজিদাকে ফোনে যা বললেন সিলেটের সাজ

ডেইলি বিডি নিউজঃ.সিলেটের শাহ আহমদ সাজ। বসবাস করছেন যুক্তরাষ্ট্রে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যার অপকীর্তি এখন ছড়িয়ে পড়ছে দেশে-বিদেশে। বিশেষ করে লাইভে এসে সাজ এর অপকীর্তি নিয়ে সরাসরি কথা বলছেন নাজিদা সৈয়দ নামের অপর এক যুক্তরাস্ট্র প্রবাসী বাংলাদেশি। তিনি জন্মসুত্রে ঢাকার মহাখালির বাসিন্দা।

তিনি নিজ আইডি থেকে লাইভে এসে কথা বলেন সিলেটের সাজ সম্পর্কে। সেখানে বহু মেয়ের সাথে সাজের অবৈধ সম্পর্ক এবং ব্ল্যাকমেইল করার ঘটনা তুলে ধরেণ তিনি। এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এখন তোলপাড়।

শাহ আহমদ সাজ‘আওয়াজ বিডি’ নামের একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালের সম্পাদক। পারিবারিক ভাবে কৃষক পরিবারে জন্ম সাজের। যুক্তরাস্ট্র সময় ৬ মার্চ নাজিদা সৈয়দ নামের এক প্রবাসী নিজ আইডি থেকে লাইভে এসে বিশদে তুলে ধরেন সাজের সকল অপকীর্তি। সেখানে তিনি বিভিন্ন মেয়ের সাথে ম্যাসেঞ্জারে সাজ’র অশ্লিল কথা বার্তা তুলে ধরেন। এতে মন্তব্যেও অংশ গ্রহণ করেছেন অনেকেই। মন্তব্যে অনেক মেয়েও সাজের অশ্লিল বার্তা পাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছেন। মেয়েদের সাথে রোমান্টিক কথা-বার্তার বিষয়টি ভাইরাল করার ভয় দেখিয়ে টাকা দাবি এবং আদায় করার বিষয়টিও চ্যালেঞ্জ দিয়েছেন মন্তব্যে।

লাইভে কান্না জড়িত কণ্ঠে নাজিদা সৈয়দ বলেন,‘আমি কিভাবে তিনটি বৎসর তাঁর সাথে কাটিয়েছি- তা একমাত্র আল্লাহ জানেন। তাঁর না ছিল চেহারা, না ছিল বিত্ত বৈভব। তবুও আপন করে নিয়েছিলাম সাজকে। তাকে ভালো করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু একের পর একাধিক মেয়ের সাথে অশ্লিল ঘটনায় জড়িত হওয়ার সংবাদে আমি মর্মাহত হয়ে পড়ি। এ ঘটনার পরও সবকিছু লুকিয়ে রাখার চেষ্টা করি। কিন্তু সাজ বিভিন্ন স্থানে আমার শরীরের বিভিন্ন অংশ নিয়েও মন্তব্য করতে থাকে-যা খুবই দু:খজনক।

এ ঘটনার পর নাজিদাকে একটা সেলফোন নাম্বার থেকে ফোন করেন সাজ। ফোনে নাজিদাকে লজ্জা শরমের কথা মনে করিয়ে দিয়ে এইসব নিয়ে কথা না বলার অনুরোধ জানান। তাছাড়া, এভাবে প্রতিশোধ হয়না এবং এক্স হয়ে গেলেই সম্পর্ক শেষ হয়ে যায়না বলে নাজিদাকে জানিয়ে দেন। উত্তরে নাজিদা বলেন,কোনো এক্সের সাথে আমার কোনো সম্পর্ক থাকতে পারে না এবং আমি তা করতেও চাইনা। জবাবে সাজ বলেন, এসব করে তুমি কি শান্তি পাচ্ছো ? নাজিদা উত্তরে বলেন, তুমি নিশ্চয়ই এতে শান্তি পাবার কথা না, তবে আমি শান্তি পাচ্ছি। তাছাড়া, কোরআন ছুঁয়েও সাজ মিথ্যা কথা বলেছে-এমনটি জানিয়ে নাজিদা বলেন, আমার সাথে কথা না বলে তুমি তোমার গার্ল ফ্রেণ্ড জাহিদা আলম, বৃষ্টি, সাথী, রহমী,সায়রা নাজ, আনাভিয়াসহ যারা যারা আপনাকে হাতে নাতে ধরেছে, তাদেরকে বলেন।

বিষয়টি নিয়ে নাজিদা আহমদের সাথে ম্যাসেঞ্জারে কথা হলে তিনি জানান, বিভিন্ন মেয়ের সাথে সাজের সম্পর্কের কথা আমি জানতাম। তবুও তাকে ভালোবেসে আপন করে নিতে চেয়েছি। তিনি বলেন, ওর তো কিছুই নেই, না আছে বাড়ি, না আছে টাকা। তবুও চেয়েছিলাম একটা পরিবর্তন আসুক। মিথ্যা কথা বলা এবং একাধিক নারীর সাথে সম্পর্ক স্থাপন করা তার নেশা ও পেশা।

শাহ আহমদ সাজ মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার বরমচালের আল-আমিনের ছেলে।






Related News

Comments are Closed