Main Menu

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ: ফের মাঠে সিলেট মহানগর যুবলীগ

ডেইলি বিডি নিউজ :: গেলো বছর করোনার শুরুতে, বিশেষ করে লকডাউনের সময়টাতে সিলেট মহানগর যুবলীগ মাঠে খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল।

সভাপতি আলম খান মুক্তির নেতৃত্বে নগরীর প্রায় প্রতিটি ওয়ার্ড এবং গুরুত্বপূর্ণ স্থানে তারা দলবদ্ধভাবে কাজ করেছেন। সচেতনতা সৃষ্টি করেছেন। শুধু কি তাই?

লকডাউনে কর্মহীন নিম্ন ও নিম্ন মধ্যবিত্তের দরোজায় দরোজায় ঘুরেছেন তারা ত্রাণ নিয়ে।

বর্তমানে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হেনেছে সিলেটসহ সারাদেশে। সিলেট বিভাগে গত ২৪ ঘন্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছে মোট ৮৫ জনের। আগের ২৪ ঘন্টায় একজনের মৃত্যুর ঘটনাও ঘঠেছে। বিভাগজুড়ে শনাক্ত হয়েছিলেন ৭৪ জন।

করোনার এই উর্ধ্বমুখী ঢেউ সামলানোর উপায় বের করতে রীতিমতো গলদঘর্ম সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, মাস্ক ব্যবহার, হাতধোয়া বা নিয়মিত স্যানিটাইজার ব্যবহারের বাইরে আর কোন উপায়ই পাওয়া যাচ্ছেনা, যদিও ভ্যাক্সিন কার্যক্রম চলছে স্বাভাবিক নিয়মে।

সিলেটের সচেতন নাগরিদের মতে, করোনা সচেতনতায় সিলেটের সুশীল সমাজ, রাজনৈতিক ও সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোকে মাঠে সক্রিয় থাকার সময় এসেছে। নগরীর মোড়ে মোড়ে বা গুরুত্বপূর্ণ স্থানে দাঁড়িয়ে সম্মিলতভাবে মাস্ক বিতরণ, সাধারণ মানুষকে মাস্ক পরিয়ে দেয়া, স্যানিটাইজার ব্যবহার বিষয়ে সচেতন করতে পারি। বিশেষ করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার উপর গুরুত্ব দিয়ে আমরা কাজ করতে পারলে করোনার সংক্রমন ঠেকানো অনেকাংশেই সম্ভব।

এ ব্যাপারে কাজ শুরু করেছে সিলেট জেলা ও মহানগর পুলিশ। তারা র্যালী বা পথসভার পাশাপাশি মাস্ক বিতরণ করছেন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার গুরুত্ব সম্পর্কে জনগনকে বুঝাচ্ছেন।

অন্যান্য সংগঠনগুলো কাজ শুরু করার প্রস্তুতি নিয়েছে। এ ব্যাপারে শুরুর দিকের মতোই আবার মাঠে নেমেছে সিলেট মহানগর যুবলীগ। বিচ্ছিন্নভাবে তারা কিছু কাজ করেছে। তবে দু’একদিনের মধ্যে আবারও তারা মাঠে নামবেন বলে জানিয়েছেন সভাপতি আলম খান মুক্তি।

তিনি জানান, এ ব্যাপারে আমরা প্রস্তুত। দু’একদিনের মধ্যে আমরা সাংগঠনিকভাবে কাজ শুরু করব। সাধারণ মানুষের হাতে মাস্ক তুলে দিবো এবং আরও যা কিছু প্রয়োজন তাই করা হবে।

পুরো নগরবাসীকে আমরা সচেতন করতে মাঠে থাকবো, রাস্তায় থাকবো। তিনি সবাইকে মাস্ক ব্যবহার ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান।






Related News

Comments are Closed