Main Menu

প্রেস লিখা যানবাহনের বিরুদ্ধে বিশেষ অভিযান

গুলজার আহমেদঃ হঠাৎ করে গণমাধ্যম সংশ্লিষ্ট একটি বিশেষ কমিউনিটি বুঝায় এমন শব্দযুক্ত স্টীকার বা লগো লাগানো গাড়ীর বিরুদ্ধে কেন অভিযান? পুলিশের এই অভিযান কি উদ্দেশ্যে? কোন আইনে তা কারো বোধগম্য নয়। সড়ক আইন কিংবা ট্রাফিক আইন বিশেষ কোন সম্প্রদায় বা বিশেষ কোন গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে রচিত হয়েছে কি না তা আমার জানা নাই। তবে পুলিশ যে কারো বিরুদ্ধে অভিযানে নামতেই পারে যদি তাদের কাছে প্রয়োজনীয় তথ্য থাকে। কিন্তু ঢালাওভাবে কোন কমিউনিটি মীন করে এমন প্রচারণা কতটুকু নৈতিকতা সমৃদ্ধ?

সাধারণত’প্রেস’ বলতে বুঝায় ছাপাখানা,সংবাদপত্র প্রতিষ্ঠান,সাংবাদিক ইত্যাদি।ইংরেজী প্রেস(press) শব্দের বাংলা পরিভাষা ‘সংবাদ পত্র’। বর্তমানে এর অর্থ আরো ব্যপক। প্রেস বলতে এখন আর কেবল সংবাদপত্রকে বোঝায় না,বোঝায় সামগ্রিকভাবে সংবাদ কারবারিদের। গোটা সাংবাদিক সম্প্রদায়কে বুঝায়।

সমাজে ভূয়া পুলিশ,ভূয়া চিকিৎসক,ভূয়া আইনজীবি, ভূয়া সাংবাদিক,ভূয়া ম্যাজিস্ট্রেট সহ বিভিন্ন পেশায় ভূয়াদের আবির্ভাব লক্ষ্য করা যায়। এ সংক্রান্ত স্পেসিফিক তথ্য পেলে অবশ্যই আইন-শৃংখলা বাহিনী অপরাধীকে আইনের আওতায় নিয়ে আসবে। কিন্তু ঢালাওভাবে কোন কমিউনিটি বোঝায় এমন গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে অভিযান ঐ গোষ্ঠিকে হেয় করার শামিল।

পুলিশ ও সাংবাদিকের কাজ এক ও অভিন্ন। রাষ্ট্র ও জনস্বার্থে এ দুই কমিউনিটি কাজ করে থাকে। সম্ভবত ২০১২ সাল। ব্লাস্ট আয়োজিত এক এডভোকেসী সভায় এস এম পি’র তৎকালীন পুলিশ কমিশনার অমূল্য ভূষণ বড়ুয়া সেখানে ছিলেন। আমিও ছিলাম। তিনি বলেছেন, আমরা তদন্তের স্বার্থে অনেক সময় তথ্য সরবরাহ করি না। গোপন রাখি। কিন্তু তদন্ত শেষ না হওয়ার আগে অনেক সময় সাংবাদিকরা সেটি প্রকাশ করে ফেলেন। এটি অবশ্য আপনাদের কাজ। তবে কিছুটা হলেও তদন্তের ব্যাঘাত সৃষ্টি হয়।

প্রেস স্টীকার লাগানো গাড়ীর বিরুদ্ধে এত ঢাক ঢোল পিটিয়ে অভিযানের ঘোষণা আসছে। ভূয়া সাংবাদিকরা থেকে থাকলে তো ইতোমধ্যেই লুকিয়ে যাবে।অপরদিকে অপরাধীরা কখনো পুলিশের নাকের ডগা দিয়ে হেঁটে যায় না। ফলে একটি নিষ্ফল অভিযানে মূল সাংবাদিকরাই হয়রানি ও হেনস্থার আশংকা লক্ষ্য করা যাচ্ছে । এতে করে পুলিশ ও সাংবাদিকদের সম্পর্কে টানাপোড়ন সৃষ্টিতে কারো কোন দুরভিসন্ধি বাস্তবায়িত হচ্ছে কিনা। ভাবনার বিষয়।

অপসাংবাদিকতা,হলুদ সাংবাদিকতা, ভূয়া সাংবাদিক ইত্যাদির অপতৎপরতা বন্ধ করতে গিয়ে প্রেস কমিউনিটির বিরুদ্ধে আপনি কিছু করছেন না তো। সামগ্রিক কার্যক্রম সার্বজনীন হোক, জনস্বার্থে হোক কিন্তু প্রেস কমিউনিউটির বিরুদ্ধে যেন না যায়। সাধারণ মানুষের কাছে সাংবাদিকতা পেশা সম্পর্কে ভূল বার্তা যেন না যায় সেদিকে জনপ্রশাসন ও পুলিশ বাহিনীর দায়িত্বশীল ব্যক্তিবর্গের সুনজর থাকা আবশ্যক।

লেখক ঃ সিনিয়র সাংবাদিক গুলজার আহমেদ – সহ-সভাপতি অনলাইন প্রেসক্লাব।






Related News

Comments are Closed